২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিরোধীদের দীর্ঘদিনের অভিযোগ, আসল ইস্যু থেকে সরে গিয়ে দেশপ্রেম এবং জাতীয়তাবাদের ধুঁয়ো তুলে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে বিজেপি। এমনকী লোকসভায় রাষ্ট্রপতির বক্তব্যের জবাবি ভাষণেও মোদি মানুষের ইস্যু নিয়ে কথা বলেননি বলে অভিযোগ করছিল বিরোধীরা। বুধবার রাজ্যসভায় রাষ্ট্রপতির ভাষণের জবাবি ভাষণে সেই সব অভিযোগ ধুলিস্যাৎ করে দিলেন মোদি। একে একে গণপিটুনি, এনসেফালাইটিসে শিশুমৃত্যু থেকে শুরু করে দেশব্যাপী খরার প্রকোপ সব ইস্যুতেই মুখ খুললেন মোদি।

[আরও পড়ুন: সরকারি আধিকারিককে ব্যাট দিয়ে পেটালেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ছেলে, ভাইরাল ভিডিও]

রাজ্যসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণপিটুনির ঘটনা আমাকে ব্যথিত করেছে। অন্যদেরও হতবাক করেছে। আমরা সুবিচার নিশ্চিত করতে চাই। এই ঘটনা যাতে বারবার না ঘটে সেদিকে পদক্ষেপ করতে চাই। কিন্তু, রাজ্যসভায় দাঁড়িয়ে যেভাবে ঝাড়খণ্ডকে গণপিটুনির ভাণ্ডার বলা হল, তা ঠিক নয়। কিছু মানুষের জন্য গোটা রাজ্যকে অপমান করা যায় না। একটা গোটা রাজ্যের বাসিন্দাদের অপমান করার অধিকার আমাদের কারও নেই। সবকিছুকে রাজনৈতিক দিক থেকে দেখা বন্ধ করা উচিত। উল্লেখ্য, এ বছরের শেষের দিকেই ঝাড়খণ্ডে নির্বাচন। তাঁর আগে রাজ্যসভায় বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ দাবি করেছিলেন, ঝাড়খণ্ড গণপিটুনির ভাণ্ডার হয়ে যাচ্ছে।

[আরও পড়ুন: অসমে প্রকাশিত নাগরিকপঞ্জির অতিরিক্ত খসড়া, নাম নেই ১ লক্ষ মানুষের   ]

বিহারে এনসেফালাইটিসে মৃত্যু মিছিল নিয়েও এদিন মুখ খোলেন প্রধানমন্ত্রী। মোদি স্বীকার করে নেন, ‘এই ঘটনা দুঃখজনক। আমাদের জন্য লজ্জার বিষয়। আমি স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। আশা করি সকলের মিলিত চেষ্টায় দ্রুত এই সমস্যার সমাধান করতে পারব। এখন সময় আয়ুষ্মান ভারতকে আরও শক্তিশালী করার।’ এনসেফালাইটিসে আক্রান্তদের মৃত্যু মিছিল রুখতে না পারা যে সরকারের ব্যর্থতা, তাও এদিন কার্যত স্বীকার করে নেন মোদি। সেই সঙ্গে তিনি মুখ খোলেন গোটা দেশের অর্ধেকের বেশি জেলায় জলসমস্যা নিয়ে। মোদি বলেন, ‘দেশের মোট ২২৬টি জেলায় জল সমস্যা রয়েছে। আমরা স্থানীয় সাংসদদের অনুরোধ করেছি। কীভাবে এমপি ল্যাডের টাকা থেকে এই সমস্যার সমাধান করা যায় তা খুঁজে বের করতে। সমাজেও আরও সচেতনতা বাড়াতে হবে।’ 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং