BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

‘৩ বছর আগে এইদিন সারারাত ঘুমাইনি’, সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথা মনে করালেন মোদি

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 29, 2019 9:33 am|    Updated: September 29, 2019 9:41 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাষ্ট্রসংঘের মঞ্চে বক্তব্য রাখার সময় একবারও পাকিস্তানের নাম উল্লেখ করেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অথচ, পালটা ইমরান খানের বক্তব্য ছিল ভারতবিদ্বেষে ভরা। তিনি একাধারে নরেন্দ্র মোদি-আরএসএস এবং ভারতকে আক্রমণ শানিয়েছেন। ইমরানের বক্তব্যের যোগ্য জবাব অবশ্য ভারত দিয়েছে। এবার খোদ প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানকে মনে করালেন ৩ বছর আাগের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথা।

[আরও পড়ুন: মুখে বিজেপির সঙ্গে জোট, শিবসৈনিককেই ‘মুখ্যমন্ত্রী’ করার বার্তা উদ্ধবের]

মার্কিন সফর সেরে গতকাল রাতেই দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর দেশে ফিরেই মনে করালেন ৩ বছর আগের সেই রাতের কথা। ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বরের রাতেই পাকিস্তানের মাটিতে গিয়ে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে ভারতীয় সেনার কম্যান্ডাররা। নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে পাক সীমান্তে ঢুকে গুড়িয়ে দিয়ে আসা হয় বেশ কয়েকটি জঙ্গি ঘাঁটি। গতরাতে দেশে ফিরেই সেই স্মৃতি উসকে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। একই সঙ্গে পরোক্ষে ইমরান খানকেও জবাব দিয়ে দিলেন মোদি। প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘‘তিন বছর আগে সেও এক ২৮ সেপ্টেম্বরের রাত ছিল। আমি গোটা রাত জেগে ছিলাম। চোখের পাতা এক করতে পারিনি, কখন টেলিফোন বাজবে। ভারতের বীর জওয়ানদের সার্জিকাল স্ট্রাইক সোনার হরফে লেখা রয়েছে, যাঁরা মৃত্যুকে মুঠোয় নিয়ে রওনা হয়েছিলেন। আজ সেই রাতকে স্মরণ করে বীর জওয়ানদের অভিনন্দন জানাচ্ছি।’’

[আরও পড়ুন: ‘ইমরান ঠিকই বলেছেন, ভারত ও আরএসএস সমার্থক’, বললেন সংঘ নেতা]


এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন কয়েক হাজার বিজেপি সমর্থক। উপস্থিত ছিলেন সাতজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং বিজেপির কার্যকরী সভাপতি জে পি নাড্ডা। দিল্লির পালাম বিমানবন্দর থেকে বিজেপি দপ্তর পর্যন্ত রীতিমতো ঢোলা-নাগারা বাজিয়ে মিছিল করেন বিজেপি সমর্থকরা। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী আরও দাবি করেন, পাঁচ বছরে বিশ্বের দরবারে ভারতের সম্মান অনেকটাই বেড়েছে। তিনি বলেন, পাঁচ বছর আগে আমি রাষ্ট্রসংঘে গিয়েছিলাম। তখন ভারতের প্রতি অন্য দেশের দৃষ্টিভঙ্গি এবং বর্তমান দৃষ্টিভঙ্গি সম্পূর্ণ আলাদা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement