BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

১৫০ আসনের ‘অস্মিতা’ কোথায় গেল? মোদিকে প্রশ্ন প্রকাশ রাজের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: December 19, 2017 11:26 am|    Updated: September 18, 2019 3:30 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সেনাপতি হাসিমুখে হাজির হয়েছেন। সর্বাধিনায়কের মুখেও হাসি। গুজরাটে গড়রক্ষা হয়েছে বিজেপির। ফলে মোদি-অমিত শাহ যে খুশি হবেন তা বলাই যায়। কিন্তু সত্যিই কি খুশি হয়েছেন? হাসির আড়ালে কি ‘কাঁটা’ লুকিয়ে নেই? রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, দিব্যি আছে। সে প্রসঙ্গ তুলেই এবার স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীকে খোঁচা দিলেন অভিনেতা প্রকাশ রাজ

ভারতীয় সেনার ভুয়ো ছবি প্রচার করে বিতর্কে কিরণ-শ্রদ্ধা ]

এক টুইট বার্তায় মোদিকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছেন অভিনেতা। গুজরাট নির্বাচনের গোড়ায় কংগ্রেসকে একেবারে উড়িয়ে দিয়েছিল গেরুয়া শিবির। গুজরাট অস্মিতার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল খোদ অমিত শাহের মন্তব্যে। আত্মপ্রত্যয়ে জানিয়েছিলেন, ১৫০টির বেশি আসন তাঁরা দখল করবেন। কিন্তু বাস্তব বলছে নিজেদের গড়েই কোনওক্রমে মুখরক্ষা হয়েছে মোদির। টেনেটুনে পাশ বলা যায়। অনেকটা যেন টি-টোয়েন্টি ফর্ম্যাট। একেবারে শেষ ওভারে ছক্কা হাঁকিয়ে জয় এসেছে ঠিকই। কিন্তু সে জয়ে শান্তি থাকলেও, স্বস্তি নেই। অভিনেতার প্রশ্ন, বিকাশ দিয়ে কংগ্রেসকে ধুয়েমুছে ফেলার যে হুঙ্কার ছিল, সেবসব কোথায় গেল? এরপরই তাঁর প্রশ্ন, এবার কি মোদি ঠাণ্ডা মাথায় কয়েকটা জিনিস ভেবে দেখবেন? কী কী ভেবে দেখার পরামর্শ অভিনেতার? প্রথমত, বিভাজনের রাজনীতি আর কাজ করবে না। গুজরাটে জাতপাতের রাজনীতি প্রবল। দলিত, পতিদার, অনগ্রসর শ্রেণির মধ্যে বিস্তর বিবাদ আছে। তা কাজে লাগানোর কৌশলও ছিল বিজেপির। কিন্তু রাহুল গান্ধী তিন তরুণ নেতাকে একজোট করতে সক্ষম হয়েছিলেন। ফলে এই বিভাজন কাজে লাগেনি। হার্দিক, অল্পেশ, জিগনেসরা আর একটু সংগঠিত হতে পারলে বিজেপি এই প্রশ্নে হেরেও যেতে পারত। সেদিকেই ইঙ্গিত অভিনেতার।

রূপানির গদি টলমল, গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর দৌড়ে এগিয়ে স্মৃতি ইরানি? ]

দ্বিতীয়ত তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, ধর্ম-পাকিস্তান ইত্যাদির বাইরেও ভারতের বড় সমস্যা আছে। সেদিকে নজর দেওয়া দরকার। ব্যক্তিগত ইগো আর স্বার্থের কথা ঝেড়ে ফেলা উচিত। তৃতীয়ত, প্রত্যন্ত অঞ্চলে, অবহেলিত মানুষ, কৃষকদের স্বর ক্রমশ জোরালো হচ্ছে। সেদিকেও নজর দেওয়া উচিত। বস্তুত, দীর্ঘ ২২ বছর ক্ষমতায় থাকা বিজেপি এই দিকটিকে পাত্তাই দেয়নি। ভোটে যার বিস্তর প্রভাব পড়েছে। অল্প মার্জিনে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে জয় হাসিল হয়েছে। কিন্তু প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ যে বিজেপিকে প্রত্যাখান করেছে তা আর গোপন নেই। কৃষকদের প্রশ্নে বরাবরই বিজেপির বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ উঠেছে। এবার সেই প্রসঙ্গ টেনেই মোদিকে তীব্র কটাক্ষে বিঁধলেন অভিনেতা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement