১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

কেন শেষ মুহূর্তে জানানো হল, জাতীয় পুরস্কার বিতর্কে মুখ খুললেন রাষ্ট্রপতি

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 5, 2018 2:38 pm|    Updated: May 5, 2018 2:38 pm

President Ram Nath Kovind annoyed over National Awards controversy

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জাতীয় পুরস্কার নিয়ে পরিস্থিতি এখনও ঠান্ডা হয়নি। রাষ্ট্রপতির বদলে যে স্মৃতি ইরানি পুরস্কার দিলেন তা মেনে নিতে পারেননি অনেকে। এর প্রতিবাদে ৭০ জন চিঠি পাঠিয়ে জাতীয় পুরস্কার নেবেন না বলে জানান। সেই বিতর্কে এবার প্রতিক্রিয়া জানালেন রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতির তরফে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তাঁর সেক্রেটারি অশোক মালিক। তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রপতি সমস্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। খুব বেশি তিনি এক ঘণ্টা মতো থাকেন। যবে থেকে তিনি অফিসের দায়িত্ব নিয়েছেন, তবে থেকেই এই নিয়ম চলে আসছে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রককে কয়েক সপ্তাহ আগেই একথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। মন্ত্রক সবকিছু জানত। কিন্তু শেষ সময় কেন তা জানানো হল, তা নিয়ে সত্যিই অবাক রাষ্ট্রপতি ভবন।

[ স্মৃতি ইরানির হাত থেকে পুরস্কার নেব না! ক্ষোভ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ীদের ]

বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে ছিল জাতীয় পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠান শুরুর কয়েক মিনিট আগে জানানো হয়, মাত্র ১১ জনকে জাতীয় পুরস্কার দেবেন রাষ্ট্রপতি। বাকিদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। এই খবর প্রকাশ্যে আসা মাত্রই বিজয়ীদের একাংশ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অশোক মালিক জানিয়েছেন, রাষ্ট্রপতিকে অন্য অনুষ্ঠানে যেতে হবে। তাই এবছর খুব বেশি পুরস্কার দেওয়ার সময় পাবেন না তিনি। দাদাসাহেব ফালকে-সহ মাত্র ১১টি পদক বিজয়ীদের হাতে রাষ্ট্রপতি তুলে দেবেন বলে ঘোষণা করে হয়।

অনুষ্ঠানে যারা স্মৃতি ইরানির হাত থেকে পুরস্কার নেন তাঁদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমন্ত্রণপত্রে লেখা ছিল রাষ্ট্রপতি জাতীয় পুরস্কার দেবেন। কিন্তু রিহার্সালের দিন তাঁরা জানতে পারেন, মাননীয় রাষ্ট্রপতি মাত্র ১ ঘণ্টা অনুষ্ঠানে থাকবেন। সেই কারণেই সবাই বিক্ষুব্ধ ছিল।

[ দুটি রাজ্যকে জুড়ল রেল, স্টেশন হল একটাই ]

তবে জাতীয় পুরস্কারের এমন বাদবিচারে খুশি নয় শিল্পীদের বৃহদাংশ। একটি ফেসবুক পোস্টে অস্কারজয়ী রসুল পুকুট্টি নিজের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, জাতীয় পুরস্কার এমন একটি মাধ্যম যেখানে গুণের কদর হয়। ২ লাখ মানুষের সামনে সেখানে রাষ্ট্রপতি বক্তৃতা দেন। এর মধ্যে অনেকেই পরোক্ষভাবে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেন। যখন রাষ্ট্রপতির হাতে ১২৫ জনের মধ্যে মাত্র ১১ জনকে পুরস্কার দেওয়ার সময় থাকে তাহলে সমস্ত স্পেকট্রাম সেই ব্যক্তিরা আলাদা হয়ে যায়। তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা ও লক্ষ্য কমে যাবে। যাঁরা ব্রাত্য থেকে গেল, তাঁদের উদ্দেশ্যে সমবেদনা জানিয়েছেন পুকুট্টি। বলেছেন, কোনও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে টেকনিশিয়ানদের প্রথমে ডাকা হয়। কিন্তু সমস্ত টেলিভিশন শো থেকে সেই অংশটি কেটে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়। স্টাররা টেকনিশিয়ানদের পাত্তা দেয় না, ব্যবসা তাদের পাত্তা দেয় না বলে অভিযোগ তুলেছেন তিনি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে