৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা মোকাবিলায় যোগীকে চিঠি প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর, রয়েছে ১১দফার পরামর্শ

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: May 13, 2020 4:29 pm|    Updated: May 13, 2020 4:29 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের মোকাবিলা করার উপায় বাতলে দিয়ে যোগী সরকারকে চিঠি লিখলেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধী ভডঢ়া। চিঠিতে ১১ দফা পরামর্শও দিয়েছেন তিনি। করোনা আবহে উত্তরপ্রদেশ সরকারকে চার মাসের জন্য গৃহঋণের সুদ মকুব করার, বিদ্যুতের বিল মকুব করার আবেদন করেন কংগ্রেস নেত্রী।

কীভাবে করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করা হবে? তা নিয়ে এর আগেও যোগী সরকারকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে এবার লিখিত আকারে চিঠিতে ১১ দফার পরামর্শ দিলেন সোনিয়া তনয়া। চিঠি প্রিয়াঙ্কা গান্ধী জানান, “রাজ্যের সমস্ত চাষিদের উৎপাদিত দ্রব্য সরকার ক্রয় করবেন। সরকারকে সেই প্রতিশ্রুতি দিতে হবে। এমনকি চাষিদের বকেয়া সমস্ত টাকাও সরকারকে মিটিয়ে দিতে হবে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের জন্য রাজ্য সরকারকে কিছু ছাড় দিতে হবে। কার্পেট শিল্পী ও তাঁতীদের অর্থনৈতিকভাবে সাহায্য করতে হবে।”

উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস নেতা জিতিন প্রসাদ বুধবার বলেন, “উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকার এই সঙ্কটকালে মানুষের পাশে দাঁড়াতে ও তাঁদের সাহায্য করতে ব্যর্থ হয়েছে। সরকার সমস্ত ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রেখেছেন। সরকারি আধিকারিকরা কেউ কিছুই জানেন না। ফলে সাধারণ মানুষ বুঝতে পারেন না কার কাছে গেলে সাহায্য মিলবে।” তিনি কংগ্রেস সমর্থকদের বলেন প্রায় দুই মাস ধরে লকডাউন চলছে এই সময়ে রাজ্যের গমচাষিদের উপর নজর দেওয়া উচিত। রাজ্য সরকারের নির্ধারিত গম বিক্রি পদ্ধতিই ত্রুটিপূর্ণ। সোমবার সেই বিষয়েই কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী টুইট করেন জানান, ” লকডাউনের জেরে উত্তরপ্রদেশের গমচাষিরা যে সমস্যায় পড়বেন তা আগেই বলা হয়েছিল। কিন্তু রাজ্য সরকার তখন সেই কথায় আমল দেননি। এখন গমচাষিদের ফসল বিক্রি করার জন্য ৩ দিন ধরে অপেক্ষা করতে হচ্ছে।”

[আরও পড়ুন:টাকা আদায় করতে না পেরে দেনাদারকে জাপটে ধরল করোনা আক্রান্ত পাওনাদার]

ইতিমধ্যেই পরিযায়ী শ্রমিকদের কষ্ট দূর করতে কংগ্রেস সভানেত্রী একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নিয়েছেন বলে জানান প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতিন প্রসাদ। দলের তরফ থেকে প্রতিটি কংগ্রেস সমর্থকদের পরিযায়ী শ্রমিকদের ট্রেনের ভাড়ার দায়িত্ব নেওয়ার নির্দেশ দেন সোনিয়া গান্ধী। সমর্থকদেরও এটা দেখার দায়িত্ব যাতে কোনও শ্রমিক বাড়ি ফেরার টিকিট পেতে গিয়ে সমস্যায় না পড়েন।

[আরও পড়ুন:এসএসকেএম হাসপাতালে করোনা সংক্রমণ, আক্রান্ত বেশ কয়েকজন চিকিৎসক]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement