BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৫ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

রাজনীতি! হাথরাসের নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের আবেগঘন ভিডিও প্রকাশ রাহুলের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: October 8, 2020 10:23 am|    Updated: October 8, 2020 10:23 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে (Priyanka) জড়িয়ে ধরে কেঁদেছিলেন নির্যাতিতার মা। নির্যাতিতার বাবা রাহুল গান্ধীর ‘হাত’ ধরে বলেছিলেন, ‘আমরা সুবিচার চাই। দিল্লিতে আমাদের হয়ে আওয়াজ তুলুন। ওঁরা আমাদের হুমকি দিচ্ছে। ঘরছাড়া করে দেবে বলছে।’ আর কী কী কথা হয়েছিল হাথরাসের (Hathras Gang Rape) নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে? কী কী অভিযোগ ছিল নির্যাতিতার পরিবারের? একটি ভিডিও প্রকাশ করে সবটা দেখালেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। যে ভিডিওতে নির্যাতিতার পরিবারের বয়ানে স্পষ্ট, তাঁদের উপর চাপ সৃষ্টি করেছিল উত্তরপ্রদেশ সরকার। যদিও, রাহুলের এই ভিডিও প্রকাশ করাকে অনেকেই স্রেফ ‘রাজনৈতিক গিমিক’ বলে বর্ণনা করছেন।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যরা রাহুলকে বলছেন,”ওঁরা দিল্লি থেকে আমাদের না জানিয়ে দেহ নিয়ে এসেছে। আমরা যাতে দিল্লিতে প্রতিবাদের সুর না চড়াতে পারি, তা নিশ্চিত করতেই আমাদের অজান্তে দেহ এখানে আনা হয়। শেষকৃত্যের সময় আমাদের কাছে যেতে দেয়নি। চোখের দেখাটাও দেখতে দেয়নি।” শুধু তাই নয়, নির্যাতিতার শেষকৃত্যের পর প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তি থেকে শুরু করে ঠাকুররা কীভাবে তাঁদের হুমকি দিয়েছে, সেটাও রাহুল গান্ধীকে জানিয়েছে নির্যাতিতার পরিবার। পালটা রাহুলকেও বলতে শোনা গিয়েছে, “আমরা সবরকমভাবে আপনাদের পাশে আছি। আমি এখানে এসেছি শুধুমাত্র আপনাদের সঙ্গে যাতে কোনও অন্যায় না হয়, তা নিশ্চিত করতে। কারণ আমি জানি, আমার এখানে আসার পর এঁরা আপনাদের উপর অন্যায় করার সাহস পাবে না।

[আরও পড়ুন: স্লথ হচ্ছে তদন্তের গতি! হাথরাস কাণ্ডে রিপোর্ট পেশের জন্য আরও ১০ দিন সময় পেল SIT]

বিরোধী নেতা হিসেবে সবার আগে রাহুল গান্ধী যখন হাথরাসের নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গেলেন, তখন কট্টর বিরোধীরাও তাঁর প্রশংসা করেছিলেন। যেভাবে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের কাছে ‘হেনস্তা’র শিকার হওয়া সত্বেও তিনি সব বাধা অতিক্রম করে হাথরাস গিয়েছিলেন, পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন, সবই প্রশংসিত হয়েছিল। কিন্তু এবার প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি যেটা করলেন, সেটা খানিকটা হলেও বিতর্কের জন্ম দিতে বাধ্য। ইতিমধ্যেই অনেকে বলতে শুরু করেছেন, তাহলে কী সবই স্রেফ প্রচারের আলো পাওয়ার জন্য?

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement