BREAKING NEWS

২৮ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘ওখানে কংগ্রেস সিদ্ধান্ত নেয় না’, মহারাষ্ট্র সরকারের ব্যর্থতার দায় নিতে নারাজ রাহুল

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 26, 2020 5:11 pm|    Updated: May 26, 2020 5:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মহারাষ্ট্রে জোট সরকারের ভবিষ্যৎ নিয়ে সোমবার থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছে। সেই জল্পনা আরও উসকে দিলেন খোদ প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুলের সাফ কথা, মহারাষ্ট্রে কংগ্রেস জোট সরকারের অংশ মাত্র। পাঞ্জাব বা রাজস্থানের মতো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা মহারাষ্ট্রে তাঁদের নেই। সরকার চালানো আর সরকারকে সমর্থন করার মধ্যে একটা পার্থক্য আছে।

বস্তুত, করোনা মোকাবিলায় এখনও পর্যন্ত দুর্দান্ত পারফর্ম করেছে কংগ্রেস-শাসিত রাজ্যগুলি। শুরুর দিকে মারাত্মক হারে সংক্রমণ হলেও পরিস্থিতিতে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এনে ফেলেছে পাঞ্জাব এবং রাজস্থান। সে তুলনায় মহারাষ্ট্রের হাল অত্যন্ত খারাপ। দেশের ৪০ শতাংশের বেশি আক্রান্ত উদ্ধব ঠাকরের রাজ্যেই। যা বেজায় অস্বস্তিতে ফেলেছে জোটসঙ্গী কংগ্রেসকে। জোট সরকারের এই ব্যর্থতার দায় একপ্রকার ঝেড়েই ফেললেন রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। মহারাষ্ট্র সরকারের ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বললেন,”আমি এটাকে একরকম করে ভাবতে চাইছি না। আমরা মহারাষ্ট্রে একটা সরকারকে সমর্থন করছি। কিন্তু গুরত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার এক্তিয়ার আমাদের নেই। আমরা পাঞ্জাব, ছত্তিসগড়, রাজস্থান, পুদুচেরিতে সরকারের চালিকাশক্তি। মহারাষ্ট্রে নই। একটা সরকার চালানো আর একটা সরকারকে সমর্থন করা এক নয়।”

[আরও পড়ুন: হঠাৎ সংকটে মহারাষ্ট্রের জোট সরকার! উদ্ধবের সঙ্গে জরুরি বৈঠক পওয়ারের]

উদ্ধবের (Uddhav Thackeray) ব্যর্থতার সাফাই দিতে গিয়ে রাহুল প্রকারান্তরে স্বীকার করে ফেললেন মহারাষ্ট্রে জোট সরকারে সেভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয় না কংগ্রেসকে। আবার জোট সরকারের থেকে একদলীয় সরকার যে বেশি ভাল, সেটাও পরোক্ষে মেনে নিলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি। সেই সঙ্গে গত দু’দিন ধরে মহা বিকাশ আগাড়ির জোটসঙ্গীদের মধ্যে অশান্তির যে জল্পনা চলছিল সেটা আরও খানিকটা উসকে দিলেন তিনি। বিজেপি আবার বলছে, মহারাষ্ট্রে জোট সরকার যে করোনা মোকাবিলায় ব্যর্থ, সেটাও প্রকারান্তরে মেনে নিয়েছেন রাহুল।  উল্লেখ্য, মহারাষ্ট্রে শিব সেনার সাথে জোট বাধা নিয়ে শুরু থেকেই আপত্তি ছিল রাহুলের। কিন্তু তা সত্বেও সোনিয়া এই জোটে সিলমোহর দেন। সেই সিদ্ধান্ত যে তিনি আজও মেনে নিতে পারেননি, সেটাও স্পষ্ট হয়ে গেল তাঁর মঙ্গলবারের বক্তব্যে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement