BREAKING NEWS

১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

রাজস্থানে বিক্ষিপ্ত অশান্তি, মোটের উপর শান্তিপূর্ণ বিধানসভা ভোট

Published by: Utsab Roy Chowdhury |    Posted: December 7, 2018 4:59 pm|    Updated: December 7, 2018 4:59 pm

Rajasthan Assembly Election 2018

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  মোটের উপর শান্তিপূর্ণ রাজস্থানের বিধানসভা ভোট. দুপুর তিনটে পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫৯.৪৩ শতাংশ। শুক্রবার সকাল আটটা থেকে চলছে ভোটগ্রহণ। ৫১ হাজার ৬৮৭ পোলিং বুথে মোট ২০০টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ১৯৯টি কেন্দ্রে নির্বাচন চলছে। ভোটে অপ্রীতিকর ঘটনা রুখতে রাজ্য জুড়ে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে পুলিশ। মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে, ক্রীড়ামন্ত্রী রাজ্যবর্ধন রাঠোর, কংগ্রেস সভাপতি সচিন পাইলট ভোট দিয়েছেন। ভোট দিয়েছেন ২,২৬৭ জন প্রার্থীও।

রাজস্থানের  ২০০টি বিধানকেন্দ্রের মধ্যে ভোট হচ্ছে না শুধু  রামগড়ে। বহুজন সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী লক্ষ্মণ সিংয়ের মৃত্যুতে এই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়েছে। তেলেঙ্গানা ও রাজস্থানের বিধানসভা  ভোটের ফল ঘোষণা ১১ ডিসেম্বর। বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী,  বিজেপির বসুন্ধরা রাজের বিরুদ্ধে ঝালরাপতন কেন্দ্রে লড়ছেন যশবন্ত সিংয়ের ছেলে মানভেন্দ্র সিং। নির্বাচনের মাত্র কয়েকসপ্তাহ আগে বিজেপি থেকে কংগ্রেসে যোগ দেন মানভেন্দ্র। ২০১৩ নির্বাচনে এই কেন্দ্র  থেকে ৬৩ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হন বসুন্ধরা রাজে। ব্যবধান ছিল ৬০,৮৯৬। মানভেন্দ্রর কংগ্রেসে যাওয়ায় এবারের লড়াই বসুন্ধরার কাছে বেশ চ্যালেঞ্জিং। রাজস্থানে ১৩০টি কেন্দ্রে মূলত বিজেপি ও কংগ্রেসের লড়াই হবে। বিধানসভায় ১৬০টি কেন্দ্র এখন বিজেপির দখলে ও আর ২৫টি কংগ্রেসের।

বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোল ছাড়া রাজস্থানের ভোটও শান্তিপূর্ণ। সিকার কেন্দ্রের ফতেহারে দুটি পোলিং বুথে ইভিএম গণ্ডগোল হয়। সুভাষ স্কুল পোলিং বুথে দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে গণ্ডগোল হয়। একটি গাড়ি ভাঙচুর হয় ও একটি বাইকে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। ৩০ মিনিট ভোট বন্ধ ছিল। পুলিশ গাড়িগুলো সরিয়ে ফের ভোট শুরু করে।  গোটা রাজ্যে দুপুর তিনটে পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫৯.৪৩ শতাংশ। জয়পুরের কিষাণপুরার ভোট দিতে এলেন ১০৫ বছরের বৃদ্ধা। ঝালাওয়ার কেন্দ্রে ভোট দিলেন ৯৭ বছরের নগেন্দ্র সিং চৌহান ও তাঁর ৮৫ বছরের স্ত্রী যুবরাজ কুয়ার।

আজ সকালে জেডি(ইউ) দলের রাজ্যসভার সদস্য শরদ যাদবের মন্তব্যের জবাব দেন বসুন্ধরা রাজে। তিনি বলেন, “বসুন্ধরা রাজের এবার আরামের প্রয়োজন। ওর অনেক ওজন বেড়ে গেছে। আগে অনেক রোগা ছিলেন।” আজ সকালে বসুন্ধরা বলেন, “কারও কারও ভাষার নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিত। আগামী দিনে কেউ যাতে এমন কাজ না করে, তার একটা উদাহরণ তৈরি করতে হবে। আমার মনে হয় কোনও মহিলার সঙ্গেই এমন ভাষায় কথা বলা উচিত নয়। আমার আত্মসম্মানে আঘাত লেগেছে। আশা করি, প্রত্যেক মহিলারই এমন মনে হয়েছে।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে