Advertisement
Advertisement
Ram Temple

বেহাল দশায় বন্ধ হতে পারে রামমন্দির! ছাদ চুঁইয়ে জল পড়ায় প্রশ্নের মুখে কর্তৃপক্ষ

ক্ষোভ উগরে মন্দিরের প্রধান পুরোহিত আরও বলেন, "যদি দু'একদিনের মধ্যে কোনও ব্যবস্থা না করা হয় তাহলে বাধ্য হয়েই আমাদের বন্ধ করতে হবে পুজাপাঠ। সেখেত্রে ভক্তদের জন্যও বন্ধ করে দেওয়া হবে মন্দিরের দরজা।"

Ram Mandir door may shutoff, says Ayodhya Ram Temple's Priest
Published by: Amit Kumar Das
  • Posted:June 25, 2024 8:53 am
  • Updated:June 25, 2024 11:57 am

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথম বর্ষাতেই ছাদ চুঁইয়ে জল পড়ছে রামলালার গর্ভগৃহে। শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গিয়েছে যে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে টর্চ জ্বেলে করতে হচ্ছে রামের আরতি। এমন বেহাল অবস্থায় দ্রুত কোনও ব্যবস্থা না নেওয়া হলে বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে রামমন্দিরের দরজা। রামলালার মন্দিরের বেহাল দশায় এমনই হুঁশিয়ারি দিলেন ক্ষুব্ধ প্রধান পুরোহিত।

অযোধ্যায় রামলালার মন্দিরের প্রধান পুরোহিত আচার্য সত্যেন্দ্র দাস। রামলালার শোচনীয় অবস্থার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “উদ্বোধনের পর প্রথম বর্ষাতেই মন্দিরের ছাদ চুঁইয়ে গর্ভগৃহে জল পড়তে শুরু করেছে। যেখানে রামলালা রয়েছেন সেই জায়গার জল থই থই অবস্থা। এই পরিস্থিতিতে শর্ট সার্কিট যাতে না হয়ে যায় তার জন্য ভোর ৪টে ও সকাল ৬টার আরতি টর্চের আলোতে করতে হচ্ছে।” রীতিমতো ক্ষোভ উগরে মন্দিরের প্রধান পুরোহিত আরও বলেন, “যদি দু’একদিনের মধ্যে কোনও ব্যবস্থা না করা হয় তাহলে বাধ্য হয়েই আমাদের বন্ধ করতে হবে পুজাপাঠ। সেখেত্রে ভক্তদের জন্যও বন্ধ করে দেওয়া হবে মন্দিরের দরজা।”

Advertisement

[আরও পড়ুন: কনফার্মড ‘তৎকাল’ টিকিট বাতিলেও ফেরত অর্ধেক টাকা! নতুন নিয়ম আনছে রেল]

এদিকে রামমন্দিরের এমন বেহাল অবস্থার জন্য বিজেপি সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলছেন ভক্তরা। অভিযোগ উঠছে, ভোটের বাজারে ফায়দা তুলতে তাড়াহুড়ো করে মন্দির উদ্বোধন করাই উদ্দেশ্য ছিল বিজেপির। তাই জাঁকজমকের ভিড়ে আসলে ব্রাত্য থেকে গিয়েছেন খোদ রামলালা। বাইরে ঝাঁ-চকচকে ভাবে মন্দির সাজানো হলেও ভেতরের অবস্থা অত্যন্ত বেহাল। তাড়াহুড়োর কাজে যা হওয়ার সেটাই হয়েছে, প্রথম বর্ষাতেই মন্দিরের ছাদ ফেটে জল গড়াতে শুরু করেছে।

Advertisement

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি মহা আড়ম্ভবরের সঙ্গে রামমন্দিরের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিভিআইপি এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো সারা দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের। তবে রামমন্দির উদ্বোধনের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেন দেশের ৪ শঙ্করাচার্য। এরা হলেন, উত্তরাখণ্ডের জ্যোতিষপীঠের শঙ্করাচার্য স্বামী অভিমুক্তেশ্বরানন্দ সরস্বতী, গুজরাটের দ্বারকা, ওড়িশার পুরীর গোবর্ধনপীঠ এবং কর্নাটকের শ্রীঙ্গেরির প্রধান। সকলেই স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন, সনাতন ধর্মের আইন ভঙ্গ করে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। অসমাপ্ত মন্দিরে ভগবান রামের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা মেনে নেওয়া যায় না। তাড়াহুড়ো করার কোনও দরকার ছিল না। মন্দিরের কাজ সম্পন্ন করেই রামের প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা যেত। অসমাপ্ত মন্দির উদ্বোধন ভুল পদক্ষেপ।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ