৩০ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মাস ছয়েক আগেই ক্ষমতা গিয়েছে। দলে এখন অনেকটাই কোণঠাসা ছত্তিশগড়ের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমণ সিং। এমনকী এবারে রমণের ছেলে অভিষেককে লোকসভা ভোটে টিকিটও দেয়নি বিজেপি। এরই মধ্যে নতুন করে বিপাকে অভিষেক। একটি চিটফান্ড সংস্থার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে মামলা দায়ের হল তাঁর বিরুদ্ধে। এছাড়াও স্থানীয় এক বিজেপি নেতা এবং এক কংগ্রেস নেতার বিরুদ্ধেও মামলা দায়ের হয়েছে।

[আরও পড়ুন: ‘আপনি নিরপেক্ষ হোন’, লোকসভায় প্রথম বক্তৃতাতেই মোদিকে সংহতির বার্তা অধীরের]

ছত্তিশগড়ের সুরগুজা জেলায় দীর্ঘদিন ধরে সক্রিয় ছিল একটি চিটফান্ড সংস্থা। প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রমণ সিংয়ের ছেলে অভিষেক সিং, প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ মধুসূদন যাদব এবং কংগ্রেস নেতা নরেশ ডাকালিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাঁরা ওই সংস্থার হয়ে প্রচার করেছেন। এক কথায় সংস্থার ব্যবসা শ্রীবৃদ্ধিতে তাঁদের প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিল। প্রেম সাগর গুপ্তা নামে এক ব্যক্তি প্রথমে অভিষেক সিং-সহ মোট ১৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতেই মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সুরগুজা পুলিশের আইজি কে সি আগরওয়াল। মোট ২০ জন অভিযুক্তের বিরুদ্ধে প্রতারণা এবং অসৎ উপায়ে সম্পত্তি হস্তান্তরের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: খুনের চেষ্টার অভিযোগে, মধ্যপ্রদেশে প্রেপ্তার কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ছেলে]

প্রেম সাগর গুপ্তার অভিযোগ, ২০০৮ সাল নাগাদ ওই সংস্থাটিতে নিজের সম্পত্তি বিক্রি করে প্রায় এক লক্ষ টাকার কাছাকাছি বিনিয়োগ করেছিলেন তিনি। সেসময় সংস্থাটির হয়ে প্রচার করতেন ছত্তিশগড়ের তখনকার মুখ্যমন্ত্রী রমণ সিংয়ের ছেলে অভিষেক, প্রাক্তন সাংস মধুসূদন এবং স্থানীয় মেয়র তথা কংগ্রেস নেতা নরেশ ডাকালিয়া। সংস্থাটির দাবি ছিল, মাত্র কয়েক মাসেই বিনিয়োগকারীদের দ্বিগুণ অর্থ দেওয়া হবে। কিন্তু, বাস্তবিক ক্ষেত্রে কোনও টাকাই আর ফেরত পাননি আমানতকারীরা। উলটে ২০১৬ সাল নাগাদ সংস্থাটি বন্ধ হয়ে যায়। তারপরই প্রচারকারী হিসেবে অভিষেকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন প্রেম সাগর। যদিও, অভিষেক সিং জানিয়ে দিয়েছেন, এই মামলার সঙ্গে তাঁর কোনও যোগ নেই। আদালতে গেলে এই মামলা ধোপে টিকবে না।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং