BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

উন্নাওয়ের ছায়া মুজফ্ফরনগরে, মামলা তুলতে গণধর্ষিতাকে অ্যাসিড হামলা

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: December 8, 2019 4:30 pm|    Updated: December 8, 2019 4:30 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একের পর এক গণধর্ষণ। প্রতিবাদে মোমবাতি মিছিল থেকে শুরু করে এনকাউন্টার পর্যন্ত সবই হচ্ছে। কিন্তু, কিছুতেই যেন শিক্ষা নিচ্ছে না সমাজ। শিক্ষা নিচ্ছে না যোগী আদিত্যনাথের রাজ্য উত্তরপ্রদেশ। একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা বারবার কলুষিৎ করছে ‘রাম জন্মভূমি’র রাজ্যকে। তালিকায় নবতম সংযোজন মুজফ্ফরনগর গণধর্ষণ। শুধু গণধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হয়নি অভিযুক্তরা। উন্নাওয়ের মতোই নির্যাতিতাকে অ্যাসিড ছুঁড়ে পুড়িয়ে মারার পরিকল্পনাও করেছিল তাঁরা।


ঘটনাটি মুজফ্ফরনগরের শাহপুর থানা এলাকার। মাস পাঁচেক আগে আরিফ, শাহানওয়াজ, শরিফ এবং আবিদ নামের চার যুবকের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের মামলা রুজু করেছিলেন বছর তিরিশের ওই নির্যাতিতা। স্থানীয় একটি আদালতে মামলাটির শুনানি চলছে। মামলা রুজু হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত চারজন মহিলাকে তা প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। তিনি মানতে না চাওয়ায় দেওয়া হয় হুমকি। হাজারো হুমকির মুখেও নির্যাতিতা মামলা প্রত্যাহার করতে রাজি হয়নি। শেষে মাঝরাতে ওই মহিলার বাড়িতে ঢুকে তাঁকে লক্ষ্য করে অ্যাসিড ছুঁড়ে দেয় চার অভিযুক্ত। ওই নির্যাতিতার শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। তাঁকে মেরঠের একটি হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। অভিযুক্ত চারজন পলাতক। তাঁদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চলছে বলে জানানো হয়েছে পুলিশের তরফে।

[আরও পড়ুন: “অন্যায় করলে এনকাউন্টার হবেই”, সাফ কথা তেলেঙ্গানার মন্ত্রীর]

এদিকে, একই দিনে মুজফ্ফরনগরেই আরও একটি মর্মান্তিক ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। মাস পাঁচেক আগে তিতওয়াই থানা এলাকায় এক নাবালিকাকে ধর্ষণ করা হয়েছিল। সেই নাবালিকা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে গিয়েছে বলে খবর। মুজফফরনগরেরই এক হাসপাতালে ভরতি সেই অন্তঃসত্ত্বা নাবালিকা। এই মামলায় অবশ্য মূল অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: ‘অজিতের সঙ্গে হাত মেলানোর বিষয়ে সবই জানতেন শরদ’, দাবি ফড়ণবিসের]

উন্নাওয়ের ঘটনার স্মৃতি এখনও দগদগে। অভিযুক্তরা এখনও শাস্তি পায়নি। এরই মধ্যে মুজফ্ফরনগরে একই ধাঁচে একাধিক ধর্ষণের অভিযোগ আরও একবার উত্তরপ্রদেশে নারী নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement