BREAKING NEWS

১৫ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  শুক্রবার ২৯ মে ২০২০ 

Advertisement

প্রকাশ্যে আনতে হবে প্রার্থীদের ফৌজদারি মামলার বিবরণ, রাজনৈতিক দলগুলিকে সুপ্রিম নির্দেশ

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: February 13, 2020 12:59 pm|    Updated: February 13, 2020 1:00 pm

An Images

ফাইল ফটো

দীপাঞ্জন মণ্ডল, নয়াদিল্লি: রাজনীতিতে দুর্বৃত্তায়ন রুখতে বড়সড় উদ্যোগ নিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এবার থেকে প্রতিটি রাজনৈতিক দলের ওয়েবসাইট ও সোশ্যাল মিডিয়াতে তাদের প্রার্থীদের ফৌজদারি মামলা (criminal cases) সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য প্রকাশ করার নির্দেশ দিল। পাশাপাশি এই একই তথ্য ৭২ ঘণ্টার মধ্যে নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা দিতে বলেছে।

গত চারটি লোকসভা নির্বাচনে দেশের রাজনীতির আঙিনায় যেভাবে ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্তদের দাপাদাপি করতে দেখা গিয়েছে তাতে চিন্তিত সুপ্রিম কোর্ট। বিভিন্ন মামলার প্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন ধরেই কেন্দ্রীয় সরকারকে এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পরামর্শ দিয়েছিল তারা। কিন্তু, তাতে কোনও কাজ হয়নি বলেই অভিযোগ। বাধ্য হয়ে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ কেন্দ্রীয় সরকারকে অবিলম্বে এই বিষয় একটি আইন প্রণয়নের পরামর্শ দেয়। যে ব্যক্তিদের নামে গুরুতর অপরাধের অভিযোগ রয়েছে তাদের নির্বাচনের লড়াই থেকে দূর করার ও দলের কোন পদে না রাখার পক্ষে সওয়াল করে। কিন্তু, তারপরও কোনও কাজ হয়নি।

[আরও পড়ুন: মু্ম্বইয়ের পর ভোপাল, ব্যস্ত সময়ে রেল-ফুটব্রিজের একাংশ ভেঙে জখম বহু ]

 

কিছুদিন আগে এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টে আদালত অবমামনার মামলা দায়ের করেন বিজেপি নেতা ও আইনজীবী অশ্বিনী কুমার উপাধ্যায়-সহ কয়েকজন। বৃহস্পতিবার সেই মামলার শুনানি শেষে দেশের রাজনীতিতে দুর্বৃত্তদের বাড়বাড়ন্ত ঠেকাতে যুগান্তকারী নির্দেশ দিল সু্প্রিম কোর্ট। পরিষ্কার জানিয়ে দিল, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলির ওয়েবসাইটে ফৌজদারি মামলা থাকা প্রার্থীদের এই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য প্রকাশ করতে হবে। এই তথ্য দিতে হবে সোশ্যাল মিডিয়াতেও। আর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এই একই তথ্য জমা করতে হবে নির্বাচন কমিশনের কাছে। পাশাপাশি জানাতে হবে ফৌজদারি মামলা থাকা সত্ত্বেও কেন ওই প্রার্থীদের নির্বাচনে লড়ানোর জন্য বাছাই করেছে দল। এই বিষয়ে আদালত স্পষ্ট জানিয়েছে যে প্রার্থীদের বাছাই করার সময় যোগ্যতার ভিত্তিতে করতে হবে। তিনি আগে কতবার জয়ী হয়েছেন তার ভিত্তিতে নয়। জয়ের ধারাবাহিকতা কখনই ভোটে দাঁড়ানোর যোগ্যতা হতে পারে না।

[আরও পড়ুন: কলেজে ঢুকে ছাত্রীদের সামনেই হস্তমৈথুন, গার্গী কলেজের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১০ জন ছাত্র ]

 

আজ আদালতের তরফে এই বিষয়ে কড়া ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে যদি রাজনৈতিক দলগুলি এই বিষয় বিস্তারিত তথ্য দিতে অসমর্থ হয়। কিংবা যদি নির্বাচন কমিশন এই নির্দেশ পালন করতে ব্যর্থ হয়। তাহলে তা আদালত অবমাননা হিসেবে ধরা হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement