BREAKING NEWS

২৮ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

অযোধ্যার পর সর্বোচ্চ আদালতে আজ রাফালে ও শবরীমালার রায়

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 14, 2019 9:13 am|    Updated: November 14, 2019 9:13 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বৃহস্পতিবার শবরীমালা ও রাফাল পুনর্বিবেচনা মামলার রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট। ১৭ই নভেম্বর অবসর নিচ্ছেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তার আগে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় দেবেন তিনি। ফলে, চলতি সপ্তাহে নজরে থাকছে সুপ্রিম কোর্টের কার্যাবলী।

[আরও পড়ুন: অয্যোধ্যায় মসজিদ তৈরির জন্য এই জমিই দিতে হবে, সুর চড়ালেন মুসলিম নেতারা]

৩৬টি রাফাল যুদ্ধ বিমান কেনার ব্যাপারে বেনিয়ম হয়েছে বলে যে সমস্ত জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছিল, গতবছর ১৪ ডিসেম্বর সুপ্রিম কোর্ট তার সবই খারিজ করে দেয়। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বে গঠিত তিন বিচারপতির বেঞ্চ সে সময় জানিয়েছিল, রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার ক্ষেত্রে কেন্দ্রের চুক্তি প্রক্রিয়ায় আদালত সন্তুষ্ট। এই চুক্তিতে কোনওরকম হস্তক্ষেপ করা হবে না। এরপর রাফাল রায় পুনর্বিবেচনা করার আরজি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানান প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা যশবন্ত সিনহা, অরুণ শৌরি ও আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। সেই আবেদন শুনতে সম্মতি দেয় শীর্ষ আদালত। সরকারের দেওয়া ‘অসত্য তথ্য’-র উপর ভিত্তি করে সেদিন রায় দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন আবেদনকারীরা। এই মামলা ফের শুরু হবে কিনা তা জানা যাবে বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের রায়ে।

[আরও পড়ুন: ৮০ বছর ধরে অটুট ভালবাসা, নিহত স্বামীর বুকে মাথা রেখে আধঘণ্টা পরই মৃত্যু বৃদ্ধার]

অন্যদিকে, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্ট কেরলের শবরীমালা মন্দিরে ৯ থেকে ৫০ বছর পর্যন্ত ঋতুবতী মহিলাদের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে রায় দেয়। বিচারপতিরা বলেছিলেন, ৫০ বছরের কম বয়সী মহিলাদের মন্দিরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাকে, ধর্মীয় আচার বলে মেনে নেওয়া যায় না। সুপ্রিম কোর্ট এই মর্মে রায় দেয় যে এই ধরনের নিষেধাজ্ঞা প্রায় অস্পৃশ্যতার শামিল। সুপ্রিম নির্দেশে মেনে কয়েকজন মহিলাকে মন্দিরে প্রবেশ করতে সবরকম সাহায্য করে রাজ্য প্রশাসন। এরপরই ওই মন্দির নিয়ে উত্তাল হয়েছে কেরল। রায় পুনর্বিবেচনা করার জন্য ৪৯টি আবেদন জমা পড়েছিল সুপ্রিম কোর্টে। পরে পুনর্বিবেচনার আর্জি গ্রহণ করে কোর্ট। সেই মামলার রায়ও আজ বেরোনোর কথা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement