BREAKING NEWS

১৯  আষাঢ়  ১৪২৯  সোমবার ৪ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

আদালতের নির্দেশ না মেনে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীদের বাংলো উপহার, বিতর্কে মধ্যপ্রদেশ সরকার

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: July 29, 2018 7:04 pm|    Updated: July 29, 2018 7:04 pm

Shivraj Singh Chouhan allows BJP ex-CMs to retain govt. banglow

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কদিন আগেই উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীদের সরকারি বাংলো খালি করা নিয়ে বিস্তর রাজনীতি হয়ে গেল। লখনউয়ের সেই উত্তাপের আঁচ পড়েছিল নয়াদিল্লিতেও। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে একপ্রকার অনিচ্ছা সত্ত্বেও সরকারি বাংলো খালি করতে হয়েছিল দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী এবং অখিলেশ যাদবকে। বাংলো খালি করার পরও গঞ্জনা শুনতে হয়েছিল অখিলেশ যাদবকে। অভিযোগ, উঠেছিল সরকারি সম্পত্তি তছরূপের। সে পর্ব মিটতে না মিটতেই জাতীয় রাজনীতিতে নয়া বাংলো-বিতর্ক। এবার মধ্যপ্রদেশে।

[এবার ভরতুকিতে বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের]

গত ১৯ জুন, মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্ট রাজ্যের সমস্ত প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে এক মাসের মধ্যে সরকারি বাংলো খালি করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু বিজেপির তিন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সে নির্দেশ মানেননি। উলটে তাঁরা মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানকে অনুরোধ করেন যেন তেন প্রকারেণ তাদের বাংলোগুলিতে থাকার ব্যবস্থা করে দিতে। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সোজা পথে তা সম্ভব ছিল না শিবরাজের পক্ষে। যদিও, তিনি নিজের দলের প্রাক্তনীদের হতাশ করতে চাইছিলেন না। শেষপর্যন্ত সরকারের উচ্চপদস্থ আমলাদের সঙ্গে আলোচনা করে বিকল্প উপায় স্থির করলেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীদের যে ‘বিশেষ বিবেচনামূলক ক্ষমতা বা ডিসক্রেশনারি পাওয়ার’ দেওয়া হয়, তা জারি করে দলের প্রাক্তন তিন মুখ্যমন্ত্রী উমা ভারতী, কৈলাশ জোশী এবং বাবুলাল গৌরকে নিজেদের সরকারি বাংলোয় থাকার অনুমতি দিলেন শিবরাজ সিং চৌহান। এই বিশেষ বিবেচনামূলক ক্ষমতা মুখ্যমন্ত্রীরা লাগু করতে পারেন জরুরি অবস্থা বা মানবিক কাজের ক্ষেত্রে। এই ডিসক্রেশনারি পাওয়ার আদালতের নির্দেশেরও উর্ধ্বে। বিজেপির প্রাক্তন তিন মুখ্যমন্ত্রীর জন্য এই বিশেষ বিবেচনা করা হলেও কংগ্রেসের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের ক্ষেত্রে এই বিশেষ বিবেচনা করা হয়নি। সরকারের দাবি, যেহেতু দিগ্বিজয় বাংলো দখলে রাখার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেননি তাই তাঁর নাম বিবেচনা করা হয়নি।

[ডাকাত সন্দেহে দু’জনকে গণপ্রহার, গুজরাটে মৃত ১]

শিবরাজ সিং চৌহানের এহেন আচরণে বেজায় চটেছে বিরোধীরা। কংগ্রেস শিবরাজের বিরুদ্ধে স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলেছে। গোটা দেশে যখন যখন ‘ভিভিআইপি কালচার’ বদলের চেষ্টা করছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী, তখন তাঁরই দলের এই মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্ত বিজেপির সদিচ্ছাকেই প্রশ্নের মুখে তুলে দিল।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে