BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

খুলে গেল শ্রীনগর-লে হাইওয়ে, লকডাউনে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সরবরাহের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: April 11, 2020 9:04 pm|    Updated: April 11, 2020 9:04 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রায় ৪ মাস পর খুলে গেল জোজিলা পাস (Zojila Pass)। লকডাউনের মধ্যে যাতে লে-র (Leh) বাসিন্দাদের অসুবিধার সম্মুখীন না হতে হয় তাই মিলল অত্যাবশ্যকীয় পণ্য নিয়ে যাওয়ার অনুমতি। খুলে দেওয়া হয় ৪৩৪ কিলোমিটারের এই দীর্ঘ রাস্তা। জোজিলা পাসই হল শ্রীনগর ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লে-র মাঝে একমাত্র সংযোগকারী রাস্তা।

লকডাউনের জেরে লাদাখ প্রশাসন শুক্রবার জানান, স্থানীয়দের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য সরবরাহ করতে তেলের ট্যাঙ্ক-সহ খাদ্যপণ্যের গাড়িগুলিতে লাদাখ যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। প্রায় চার মাস পর জোজিলা পাস খুলে দেওয়া হল এই পণ্যবাহী ট্রাকগুলি খাদ্য নিয়ে যাওয়ার জন্য। প্রতিবছরই শীতকালে লাদাখ তুষারাবৃত হয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ভারতের থেকে। সেনা আধিকারিকের কথায়, “সাড়ে এগারো হাজার ফিট উঁচুতে থাকা জোজিলা পাসই জম্মু-কাশ্মীরের সঙ্গে লাদাখের যোগাযোগের একমাত্র পথ। সেই পথটাই খুলে দেওয়া হবে লাদাখে থাকা স্থানীয়দের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য পাওয়ার সুবিধার জন্য।” লাদাখ কমিশনের ডিভিশনার অফিসার জানান, “ডিসেম্বরের পর থেকেই রাস্তা বন্ধ থাকায় দীর্ঘদিন স্তব্ধ ছিল পরিবহন ব্যবস্থা। কিন্তু লকডাউনের ফলে সমস্যায় পরতে পারেন স্থানীয়রা। তাই তাদের কথা মাথায় রেখে বরফ সরিয়ে রাস্তা করে দেওয়া হয়েছে। সেই রাস্তা দিয়েই ১৮টি তেলের ট্যাঙ্ক ও পণ্যবাহী ট্রাক সোনমার্গ থেকে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রতি বছরের তুলনায় এই বছর তুষারপাত মাত্রাতিরিক্ত হওয়ায় বরফ সরিয়ে রাস্তা তৈরিতে সময় চলে যায়।” সোনমার্গ থেকে পণ্যবাহী ট্রাক লাদাখে নিয়ে যাওয়ার জন্য আগের দিন রাতে সোনমার্গে সেই ট্রাকগুলি ক্যাম্প করে রাখা থাকবে যাতে পরের দিন সকালে ৮ টার মধ্যে লাদাখের সীমার মধ্যে পৌঁছে দেওয়া য়েতে পারে।

[আরও পড়ুন:বাজারে প্রায় ৩ কোটি হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ট্যাবলেট রয়েছে, আশ্বস্ত করল স্বাস্থ্যমন্ত্রক]

তবে পণ্যপরিবহনের সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়ে কড়া নজর রাখতে লাদাখের সীমার মধ্য প্রবেশের আগেই যে সকল ট্রাক ও পণ্য পাঠানো হচ্ছে তার তালিকা প্রস্তুত করে লাদাখের প্রশাসনের কাছে আগে পাঠানো করা বলা হয়। ফলে সেই তালিকায় ট্রাকের রেজিস্টেশন নাম্বার, মালিকের নাম, চালকের নাম কী পণ্য নিয়ে যাওয়া হবে তার বিস্তারিত তথ্য লিখে পাঠানো হবে।

[আরও পড়ুন:চিকিৎসার গাফিলতিতে মৃত শিশু, নিথর দেহ কোলে নিয়ে হেঁটে বাড়ি ফিরলেন মা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement