২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

সুপ্রিম স্বস্তি পেলেন কর্ণাটকের বিদ্রোহী বিধায়করা, লড়তে পারবেন উপনির্বাচনে

Published by: Bishakha Pal |    Posted: November 13, 2019 11:57 am|    Updated: November 13, 2019 11:57 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কর্ণাটকের ১৭ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিল নিয়ে স্পিকার যে সিদ্ধান্ত রেখেছিলেন, তা বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। তবে উপনির্বাচনে তাঁরা লড়তে পারবেন বলে রায় দিয়েছে শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ে কার্যত স্বস্তিতে ওই ১৭ বিধায়ক। তবে স্পিকার যে এই ১৭ জনের সদস্যপদ ২০২৩ সাল পর্যন্ত বাতিল করেছিলেন, তা নাকচ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট।  

এই ১৪ জন বিধায়ক বিধানসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার পরই সংকটে পড়ে কংগ্রেস-জেডিএস জোট সরকার। গত জুলাই মাসে কর্ণাটকে বিধায়কদের বিদ্রোহের জেরে পতন হয়েছিল ১৩ মাস বয়সি জেডি (এস)-কংগ্রেস জোট সরকারের। অভিযোগ উঠেছিল, বিজেপির মদতেই পুরো ঘটনা ঘটেছে। ওই ১৭ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিল করেছিলেন স্পিকার কে আর রমেশ কুমার। ফলে কুমারস্বামীর সরকারের পতন ঘটে। নিশ্চিতভাবেই এরা বিজেপির দিকে ঝুঁকে ছিলেন। আস্থা ভোটের আগেই স্পিকার রমেশ কুমার জানিয়ে দেন, এদের সকলকে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিধায়করা সশরীরে স্পিকারের সামনে হাজির হওয়ার জন্য যে সময়সীমা চেয়েছিলেন তা তাঁদের দেওয়া সম্ভব নয়। তাৎপর্যপূর্ণভাবে এই বিধায়করা চলতি বিধানসভার মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা আর নির্বাচনেও লড়তে পারবেন না। যদিও, স্পিকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে যাওয়ার রাস্তা খোলা ছিল বিধায়কদের। আর সেই সুযোগটাই কাজে লাগান বিধায়করা। তাঁরা প্রথমে হাইকোর্ট ও পরে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন।  

[ আরও পড়ুন: রাম মন্দির নির্মাণ ট্রাস্টের সভাপতি হিসেবে যোগীর নাম প্রস্তাব ন্যাসের ]

এদিন সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয় স্পিকারের সিন্ধান্ত বহাল থাকবে। তবে স্পিকার জানিয়েছিলেন, ২০২৩ সাল পর্যন্ত বিধানসভার মেয়াদ থাকবে। ততদিন পর্যন্ত নির্বাচনে লড়তে পারবেন না এই দলত্যাগী বিধায়করা। এই বিষয়টি নিযেও ওঠে প্রশ্ন। তার পরিপ্রেক্ষিতে শীর্ষ আদালত জানায়, উপনির্বাচনে ওই ১৭ জন বিধায়ক লড়তে পারবন। এ নিয়ে ওই ১৭ জন বিধায়কের কোনও বাধা নেই বলে জানায় সুপ্রিম কোর্ট।

[ আরও পড়ুন: স্বয়ংক্রিয় রাইফেল হাতে বর-কনে, জঙ্গিপুত্রের বিয়ে ঘিরে চাঞ্চল্য নাগাল্যান্ডে ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement