৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  ন’মাসের শিশুকে ধর্ষণের পর খুনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন বিজেপি কর্মীরা। পোড়াচ্ছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর কুশপুতুলও। কিন্তু, অসতর্কতার জেরে নিজেদের গায়েই আগুন ধরিয়ে ফেললেন তাঁরা। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে তেলেঙ্গানার ওয়ারাঙ্গলে। এর জেরে জখম হয়েছেন দুই মহিলা-সহ চারজন। চিকিৎসার জন্য তাঁদের স্থানীয় হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন- ‘জয় শ্রীরাম’ উচ্চারণে চাপ দেওয়া কি মুসলমান-বিদ্বেষ? প্রশ্ন তুললেন তসলিমা]

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি ওয়ারাঙ্গল শহরে ৯ মাসের একটি শিশুকে ধর্ষণের পর খুন করা হয়। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরেই উত্তেজনা ছড়ায় তেলেঙ্গানা জুড়ে। বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ দেখতে থাকেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। সোমবার সেই বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করা হচ্ছিল ওয়ারাঙ্গল শহরে। বিক্ষোভ দেখানোর মাঝে মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও-এর কুশপুতুলে কেরোসিন লাগিয়ে পোড়ানোর চেষ্টা করেন উপস্থিত বিজেপি কর্মীরা। কিন্তু, অসতর্কতার জেরে সেই আগুন লেগে যায় তাঁদের নিজেদের শরীরে। অগ্নিদগ্ধ হন ওয়ারাঙ্গল (গ্রামীণ) জেলার বিজেপি সভাপতি পদ্মা রাও-সহ চারজন। সঙ্গে সঙ্গে আগুন নেভানোর পাশাপাশি তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। শ্রীনিবাস বলে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন- আদিবাসী মহিলাদের হেনস্তা করলেই মুণ্ডচ্ছেদ করা হবে মুসলিমদের, সাংসদের মন্তব্যে বিতর্ক]

গত ১৮ তারিখ ওয়ারাঙ্গল শহরে ৯ মাসের একটি শিশুকে ধর্ষণের পর খুন করা হয়। এরপরই অপরাধীদের শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বিজেপির তরফেও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবাদ দেখানো হচ্ছিল। তদন্তে নেমে প্রভীন নামে ২৮ বছরের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। জেরায় নিজের অপরাধের কথা স্বীকারও করে সে। বলে, গত ১৮ তারিখ রাতে ওই শিশুটিকে অপহরণ করে একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে যায়। তারপর তাকে ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে খুন করে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং