১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সুপ্রিম নির্দেশে কেরলের পদ্মনাভস্বামী মন্দির পরিচালনার ভার ফিরে পেল ত্রিবাঙ্কুরের রাজপরিবার

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: July 13, 2020 7:04 pm|    Updated: July 13, 2020 7:04 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শেষ পর্যন্ত অবসান হল দীর্ঘ ৯ বছরের আইনি লড়াইয়ের। সব বাধা কাটিয়ে পৃথিবীর সবচেয়ে ঐশ্বর্য্যশালী পদ্মনাভস্বামী মন্দির (Padmanabhaswamy temple) পরিচালনার ভার ফিরে পেল ত্রিবাঙ্কুরের রাজ পরিবার (Travancore royal family)। ২০১১ সালে কেরলের তিরুবন্তপুরমে অবস্থিত এই রহস্যময় মন্দির পরিচালনার ভার রাজ্য সরকারের হাতে তুলে দেয় কেরল হাই কোর্ট। এই রায়ের বিরুদ্ধে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হন ত্রিবাঙ্কুর রাজ পরিবারের সদস্যরা। দীর্ঘ ৯ বছর ধরে সেই মামলা চলার পর সোমবার ফের ওই মন্দির পরিচালনার ভার রাজপরিবারের হাতে তুলে দিল সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)।

২০১১ সালে বিনোদ রাইয়ের নেতৃত্বে গঠিত অডিট কমিটির রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়, মন্দির পরিচালনার নামে আর্থিক তছরুপ হচ্ছে। এরপরই কেরল হাই কোর্ট এই সংক্রান্ত মামলার রায় দিতে গিয়ে মন্দির পরিচালনার ভার ত্রিবাঙ্কুর রাজপরিবারের থেকে নিয়ে রাজ্য সরকারের হাতে তুলে দেয়। এর জন্য সরকারকে একটি কমিটি তৈরিরও নির্দেশ দেয়। সোমবার সেই রায় খারিজ করে দিয়ে ফের রাজপরিবারের হাতেই মন্দির পরিচালনার ভার ফেরাল সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।

[আরও পড়ুন: নজরে চিন, আমেরিকার থেকে আরও ৭২ হাজার অত্যাধুনিক রাইফেল কিনবে ভারত ]

কেরল সরকার ও ত্রিবাঙ্কুর রাজ পরিবারের বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি ইন্দু মালহোত্রা ও ইউইউ ললিতের ডিভিশন বেঞ্চ রায় দেয়, ২০১১ সালের ৩১ জানুয়ারি কেরল হাই কোর্ট ওই মন্দিরের পরিচালনার অধিকার রাজপরিবারের হাতে থাকবে না বলে নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু, সুপ্রিম কোর্ট তা যুক্তিযুক্ত বলে মনে করছে না। তাই ফের এই মন্দির পরিচালনা ভার রাজপরিবারের হাতেই ফিরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিচ্ছে। যতদিন না রাজ পরিবারের তরফে মন্দির পরিচালনার জন্য কোনও কমিটি তৈরি করা হচ্ছে ততদিন সুপ্রিম কোর্টের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি কমিটি কাজ চালাবে। পরে রাজ পরিবারের কমিটি দায়িত্বভার গ্রহণ করে বহুবছর ধরে বন্ধ থাকা গোপন কুঠুরির দরজা খুলবে কিনা তা ঠিক করবে।

সোমবার সুপ্রিম কোর্টের এই রায় শুনে খুশির আমেজ ছডিয়েছে ত্রিবাঙ্কুর রাজ পরিবারের মধ্যে। তাদের কথায়, এই জয় কেরলের মানুষের জয়। তাঁদের প্রার্থনার জন্যই মন্দির পরিচালনার ভার ফের রাজ পরিবারের হতে তুলে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে কেরল সরকারের তরফেও এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে এর বিরুদ্ধে আবেদন করা হবে না বলে জানানো হয়েছে।

[আরও পড়ুন: পানমশলার নেশার টানে হাসপাতাল থেকে বেমালুম পালাল করোনা রোগী, নির্বিকার কর্তৃপক্ষ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement