২  ভাদ্র  ১৪২৯  শুক্রবার ১৯ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

বাজেট ২০২০: আয়করে ছাড় মিললেও LIC নিয়ে সিদ্ধান্তে হতাশা, শুরু বাজেটের সমালোচনা

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: February 1, 2020 9:50 am|    Updated: February 1, 2020 6:35 pm

Union Budget 2020 LIVE: Criticism sparks row over budget by Nirmala Sitharaman

পেশ হল দ্বিতীয় মোদি সরকারের প্রথম পূর্ণাঙ্গ বাজেট। সকাল ১১টায় সংসদে বাজেট পড়া শুরু কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের। রুগ্ন অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে একাধিক দাওয়াই  দেওয়ার চেষ্টা করলেও, শেষ পর্যন্ত  আয়করের নতুন কাঠামো ছাড়া খুব বেশি প্রাপ্তি নেই তাঁর বাজেটে।  ৫ লক্ষ টাকা  পর্যন্ত বার্ষিক আয়  সম্পূর্ণ করমুক্ত। LIC-র আংশিক বিলগ্নিকরণের  সিদ্ধান্তে হতাশ আমজনতা। ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য সুরক্ষা বিমার অঙ্ক বাড়ল।  কৃষি, শিক্ষাক্ষেত্র এবং  পরিবহণ খাতে  নতুন প্রকল্প ঘোষণা। টানা ২ ঘণ্টা ৪১ মিনিট ধরে বাজেট পড়লেন সীতারমণ। তা শেষ হতেই শুরু হয়ে গিয়েছে খুঁটিনাটি সমালোচনা।

দুপুর ২.২০: দিল্লির মানুষজন বাজেট থেকে কিছুই পাননি। সমালোচনা মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের। 

দুপুর ১.৫৭: বাজেটে কর্মসংস্থানের দিশা নেই, বাজেট ভাষণ শেষের পর প্রথম প্রতিক্রিয়ায় বললেন রাহুল গান্ধী।

দুপুর ১.৪২: টানা ২ ঘণ্টা ৪১ মিনিটের বাজেট ভাষণ সমাপ্ত করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ।

দুপুর ১.৩৫: আধার-প্যান সংযুক্তিকরণের পদ্ধতি আরও সরল করার সিদ্ধান্ত। 

দুপুর ১.৩০: নতুন করকাঠামো বাধ্যতামূলক নয়। পুরনো হারে কর দিলে আগের মতোই ছাড় মিলবে। জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।আয়কর ছাড়ের মোট ৭০ টি ক্ষেত্র পুরোপুরি তুলে দেওয়া হল। বিলুপ্ত ডিভিডেন্ট ট্যাক্স।  

দুপুর ১.২২: সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও পতন শেয়ার বাজারে। সেনসেক্স নামল ৬০০ পয়েন্ট। আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ার সূচকে ১৬ শতাংশ পতন। 

দুপুর ১: আয়কর হারে নয়া ঘোষণা।  কমল আয়করের হার।

বার্ষিক আয়                                               করের হার (%)

৫ লক্ষ টাকা                                                   ০

৫ – ৭.৫ লক্ষ টাকা                                           ১০

৭.৫ – ১০ লক্ষ টাকা                                          ১৫

১০ – ১২.৫ লক্ষ টাকা                                        ২০

১২.৫ – ১৫ লক্ষ টাকা                                        ২৫  

১৫  লক্ষের বেশি                                              ৩০

দুপুর ১২.৫২: জীবন বিমা সংস্থার (LIC) আংশিক বেসরকারিকরণের ঘোষণা বাজেটে। সরকারি অংশীদারি  বিক্রির সিদ্ধান্ত। বিক্রি করা হবে IDBI ব্যাংকের সরকারি শেয়ারও।

দুপুর ১২.৪৩: ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য বিমার উর্ধ্বসীমা বাড়ল। সঞ্চয়ের অঙ্ক অনুযায়ী ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিমা পাবেন গ্রাহকরা। ব্যাংক দেউলিয়া হলে, গ্রাহক সুরক্ষায় নতুন ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর। এই ক্ষেত্রে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ। 

দুপুর ১২.৪০: নতুন দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল – জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের আর্থিক উন্নয়নে বরাদ্দ ঘোষণা। লাদাখের জন্য ৫৯৫৮ কোটি টাকা এবং জম্মু-কাশ্মীরের জন্য বরাদ্দ ৩০,৭৭০ কোটি টাকা।

দুপুর ১২.৩৭: আয়কর আইনে সংশোধনের প্রস্তাব কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর। করদাতাদের স্বস্তি এবং ভরসা দিতে নতুন সনদ আনতে চলেছে কেন্দ্র।  অযথা  হয়রানি এড়ানোর লক্ষ্যে এই পদক্ষেপ।

[আরও পড়ুন: বাজেট ২০২০: ব্যাংক বন্ধ হলে সঞ্চয়ে ৫ লক্ষ পর্যন্ত বিমা, ঘোষণা নির্মলার]

দুপুর ১২.২৬: জলবায়ু পরিবর্তন রুখতে ও পরিবেশ রক্ষায় ৪৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করলেন নির্মলা সীতারমণ। বড় শহরগুলির দূষণ নিয়ন্ত্রণে এই টাকা খরচ করা হবে।

দুপুর ১২. ২৪: দেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের প্রতিষ্ঠানগুলিকে এবার  সংস্কৃতি মন্ত্রকের অধীনে আনা হবে, ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর।

 

দুপুর ১২.২০:  কেন্দ্রের উদ্যোগে কলকাতা মিউজিয়াম সংস্কারের ঘোষণা। রাঁচিতে নতুন করে আদিবাসী সম্প্রদায়ের জন্য সংগ্রহশালা তৈরি।আরও ৪টি মিউজিয়ামের আধুনিকীকরণ। দেশের পাঁচটি নৃতাত্বিক স্থান ঘিরে নতুন সংগ্রহশালা তৈরি করবে কেন্দ্র। বাজেটে ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর।

দুপুর ১২.১৬: ‘বেটি বচাও, বেটি পড়াও’ প্রকল্পের সাফল্য তুলে ধরলেন নির্মলা সীতারমণ। দেশের মেয়েদের শিক্ষার হার পুরুষের তুলনায় বেশি, জানালেন অর্থমন্ত্রী। ২৮৬০০ টাকা বরাদ্দ নারীদের উন্নয়ন প্রকল্পে। 

দুপুর ১২.১২: পরিবেশ সুরক্ষায় সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারে জোর দেওয়ার ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর। পুনর্নবীকরণে ২২ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ। 

দুপুর ১২.০৪: আরও ৬০০০ কিমি  জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের ঘোষণা। বিভিন্ন বন্দর বেসরকারিকরণের উদ্যোগ। ২০২৪ এর মধ্যে দেশে আরও ১০০টি বিমাবন্দর তৈরি হবে, ঘোষণা নির্মলা সীতারমণের। 

দুপুর ১২:  রেলে নতুন ঘোষণা। ২৭ হাজার কিমি দীর্ঘ রেললাইনে বৈদ্যুতিকীকরণ। ১৫০ টি নতুন ট্রেন পিপিপি মডেলে চলবে। তেজসের মতো দ্রুতগতির ট্রেন চলবে মুম্বই-আমেদাবাদ, বেঙ্গালুরু-চেন্নাই রুটে। নতুন ট্রেন অসমেও। সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারে জোর। রেলের জন্য নেওয়া জমিতেই তৈরি হবে রেলের যাবতীয় প্রকল্প। ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর।

বেলা ১১.৫১: শিক্ষাক্ষেত্রে বরাদ্দ ৯৯,৩০০ কোটি টাকা। স্যাটে বসার রাস্তা খুলল এশিয়ার অন্যান্য দেশ এবং আফ্রিকার পড়ুয়াদের জন্যও। অনলাইন ডিগ্রি কোর্স ও চাকরিভিত্তিক শিক্ষায় জোর দেওয়ার কথা বললেন নির্মলা সীতারমণ।

বেলা ১১.৪৮: শিক্ষক, প্রশিক্ষিত নার্সের চাহিদা অনেক বেশি। তাই স্বাস্থ্যমন্ত্রকের অধীনে ব্রিজ কোর্স ও বিশেষ প্রশিক্ষণ চালু হবে, জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।  ডিপ্লোমা কোর্সের জন্য  ১৫০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৈরি হবে।

বেলা ১১.৪৫: নতুন শিক্ষানীতি ঘোষণা হবে শিগগিরই। খুলল প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের পথ। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দুটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণা। তৈরি হবে জাতীয় পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় ফরেনসিক বিশ্ববিদ্যালয়। চিকিৎসকদের ঘাটতি মেটাতে জেলায় জেলায় মেডিক্যাল কলেজ। প্রতিটি জেলা হাসপাতালের সঙ্গে পিপিপি মডেলে চালু হবে পাঠক্রম। ঘোষণা নির্মলা সীতারমণের।

[আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্ক, মাস্ক রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি ভারতের]

বেলা ১১.৩৯: গ্রামোন্নয়নে ১.২৩ লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘোষণা নির্মলা সীতারমণের।

বেলা ১১.৩৫:  কিষাণ রেল, কৃষি উড়ান যোজনার ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর। যা দেশের প্রথম। পচনশীল কৃষিজ পদার্থ পরিবহণে চালু হবে কিষাণ রেল। কৃষিজ পণ্য রপ্তানির রাস্তা সুগম করা লক্ষ্যে কৃষি উড়ান। উত্তর-পূর্বের সঙ্গে যোগাযোগ মসৃণ করবে এই দুই পরিষেবা।

বেলা ১১.৩২: জৈব সার ব্যবহারে জোর, ফসল মজুত রাখতে আধুনিক গুদাম তৈরি করা হবে। ঘোষণা নির্মলা সীতারমণের। কৃষিক্ষেত্রে বরাদ্দ অতিরিক্ত ১৫ লক্ষ কোটি টাকা।

বেলা ১১.২৫: সামাজিক ও আর্থিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা বাজেটের লক্ষ্য, দাবি নির্মলার। বললেন, ২০২২ সালের মধ্যে আয় দ্বিগুণ করা হবে। 

বেলা ১১.২২: বাজেটে কৃষকস্বার্থে আরও ঘোষণা। কৃষিক্ষেত্রকে আরও লাভজনক করতে প্রযুক্তি নির্ভরতার কথা বললেন নির্মলা সীতারমণ। খরাপ্রবণ ১০০ টি জেলাকে চিহ্নিত করে উন্নয়নে কাজ করা হবে। পণ্য কেনার জন্য ইনসেনটিভ এবং ২০ লক্ষ কৃষককে সৌরশক্তিতে চালিত পাম্প দেওয়ার ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর। সেচের কাজে আরও সুযোগসুবিধা দেওয়া হবে।

বেলা ১১.২০: জনস্বার্থের কথা বলতে গিয়ে দু’টি কবিতার কিছুটা অংশ পড়লেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। 

 

বেলা ১১.১৮: প্রযুক্তির উন্নতির সাহায্যে আর্থিক উন্নয়নের রাস্তা আরও সহজ করাই লক্ষ্য, দাবি নির্মলার।

বেলা ১১.১৪: শক্তপোক্ত অর্থনীতির উপর দাঁড়িয়েই বিপুল ভোট নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছেন মোদি সরকার, ব্যাখ্যা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর। 

বেলা ১১.১১: ‘GST প্রণয়নের জন্য প্রত্যক্ষ করদাতার সংখ্যা বেড়েছে। মানুষের উপর থেকে করের বাড়তি বোঝা কমেছে। পরিবার পিছু মাসে ৪ শতাংশ সঞ্চয় বেড়েছে। ২ বছরে তৈরি হয়েছে ৬০ লক্ষ নতুন করদাতা।’ বললেন নির্মলা সীতরমণ।

বেলা ১১.০৫: দেশের অর্থনীতির ভিত মজবুত, দাবি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর। GST কে ‘ঐতিহাসিক পদক্ষেপ’ অ্যাখ্যা দিয়ে পেশ করলেন হিসেবনিকেশ। দেশবাসীর আয় এবং ক্রয়ক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে চলতি বাজেট পেশ। 

বেলা ১১:  কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীকে বাজেট পড়ার আহ্বান অধ্যক্ষ ওম বিড়লার। পড়া শুরু করলেন নির্মলা সীতারমণ। 

সকাল ১০.৫৭: সংসদে একে একে হাজির হচ্ছেন সাংসদরা। এলেন হেমা মালিনী, সানি দেওল।

সকাল ১০.৫৫:  বাজেটের প্রাক্কালে আশাবাদী বণিক সভাগুলি। হাতের কাজ সরিয়ে টেলিভিশনের পর্দায় চোখ শিল্পপতিদের। 

সকাল ১০.৫০:  বৈঠকের পর নির্মলা সীতারমণের প্রস্তাবিত বাজেটে সিলমোহর দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

সকাল ১০.৩৩:  বাজেট পেশের আগে নির্মলা সীতারমণের পরিবার পৌঁছল সংসদে। রয়েছেন তাঁর মেয়েও।

সকাল ১০.২৪: সংসদে এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। 

সকাল ১০.১৫: বাজেটের আগে সংসদে শুরু কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক।

সকাল ১০.১৩:  যথাযথ নিরাপত্তায় বাজেটের নথিপত্র আনা হল সংসদে। ১১টায় বাজেট পড়া শুরু করবেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। 

budget-copy-N
সংসদে এল বাজেটের কপি

সকাল ১০: নির্মলা সীতারমণ, অনুরাগ ঠাকুররা পৌঁছলেন সংসদে। বাজেট পেশের আগে মন্ত্রিসভার বৈঠক।

সকাল ৯.৪৫: সংসদে পৌঁছলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব রাজীব গৌবা। 

সকাল ৯.৩১: বাজেট পেশের ঠিক আগেই শেয়ার বাজারে পতন। সেনসেক্স নামল ৩৫০ পয়েন্টে। নিফটি পড়ল ১২৫ পয়েন্ট।

share-market
সকাল ৯.১৫: নির্মলা সীতারমণ এবং তাঁর সঙ্গে থাকা মন্ত্রকের সদস্যরা রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে গেলেন।

সকাল ৯.১০: নর্থ ব্লকে নিজের মন্ত্রকে পা রাখলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। চিরাচরিত ব্রিফকেসের বদলে তাঁর হাতে লাল শালুতে মোড়া খাতা।

[আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্ক: দেশে ফিরলেন চিনে আটকে থাকা ৩২৪ জন ভারতীয়]

সকাল ৯.০৪: অর্থমন্ত্রকে পৌঁছলেন প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর।
সকাল ৮.৫৭: ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ’-এর লক্ষ্যেই ২০২০-২১ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ হতে চলেছে। আমজনতার সুবিধাকে মাথায় রেখে সব তৈরি হয়েছে। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মন্তব্য অনুরাগ ঠাকুরের।
সকাল ৮.৫০: বাজেট পেশের প্রাক্কালে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর নিজের বাড়িতে পুজোয় মগ্ন।

সকাল ৮.৪৬: নিজের বাসভবন থেকে বেরিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ অর্থমন্ত্রকের উদ্দেশে রওনা দিলেন।

[আরও পড়ুন: দ্বিতীয় মোদি সরকারের প্রথম পূর্ণাঙ্গ বাজেট, কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে অর্থমন্ত্রী]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে