২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  শনিবার ১১ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘এক কোণে গিয়ে সারাদিন বসে থাকুন’, নাগেশ্বর রাওকে শাস্তি সুপ্রিম কোর্টের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: February 12, 2019 4:23 pm|    Updated: February 12, 2019 4:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আদালত অবমাননার দায়ে সিবিআই-এর প্রাক্তন অন্তবর্তীকালীন অধিকর্তা নাগেশ্বর রাওকে কড়া শাস্তি দিল শীর্ষ আদালত। মঙ্গলবার আদালতের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আদালত কক্ষের এক কোণায় গিয়ে তাঁকে বসে থাকার নির্দেশ দেয় প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর বেঞ্চ। পাশাপাশি এক লক্ষ টাকা জরিমানাও করা হয়। শুধু নাগেশ্বর রাও নন, সঙ্গে সিবিআই-এর আইনি অফিসারকেও দিনভর আদালত কক্ষে বসে থাকার নির্দেশ দেয় শীর্ষ আদালত। নাগেশ্বর রাও-ই প্রথম সিবিআই কর্তা, যাঁকে শাস্তি দিল সুপ্রিম কোর্ট।

[প্রধানমন্ত্রীর সভায় মহিলা সহকর্মীর সঙ্গে ‘অশালীন’ আচরণ ত্রিপুরার মন্ত্রীর]

সিবিআই-এর প্রাক্তন অধিকর্তা অলোক ভার্মার অপসরণের পর অন্তবর্তীকালীন অধিকর্তা হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন নাগেশ্বর রাও। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এই সংস্থার দায়িত্ব সামলালেও কোনও নীতিগত সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না বলে তখন তাঁকে নির্দেশ দিয়েছিল সর্বোচ্চ আদালত। কিন্তু তিনি সেই নির্দেশের অবমাননা করেছেন বলে সম্প্রতি তাঁকে নোটিস পাঠায় আদালত। তাঁর বিরুদ্ধে প্রাক্তন যুগ্ম অধিকর্তা এ কে শর্মাকে বদলি করার অভিযোগ ওঠে। শীর্ষ আদালতের নির্দেশে মুজফফরপুরের এক অনাথ আশ্রমে ধর্ষণ মামলার তদন্ত করছিলেন প্রাক্তন যুগ্ম অধিকর্তা এ কে শর্মা। তাঁকে বদলি করার আগে নিয়ম মেনে শীর্ষ আদালতের অনুমতিও নেননি বলে নাগেশ্বর রাওয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে।

[প্রিয়াঙ্কার রোড শো’র সাফল্যের জের, কংগ্রেসকে জোটের প্রস্তাব সপা-বসপার!]

উল্লেখ্য, সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছিল, এই মামলার সঙ্গে যুক্ত কোনও অফিসারকে আদালতের নির্দেশ ছাড়া অন্যত্র বদলি করা যাবে না। সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া নোটিসের উত্তরে সোমবার আদালতে নিঃশর্ত ক্ষমা চান রাও। জানান, এটা অনিচ্ছাকৃত ভুল। ইচ্ছাকৃতভাবে এই সিদ্ধান্ত তিনি নেননি। কিন্তু এদিন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ জানান, নাগেশ্বর রাও আদালতের নির্দেশ অবমাননা করেছেন। ফলে শাস্তি তাঁকে পেতেই হবে। সিবিআই কর্তার হয়ে এদিন সওয়াল করেন অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল। তিনি বলেন, নাগেশ্বর রাও-এর এই ভুল অনিচ্ছাকৃত। তাঁর ৩২ বছরের চাকরি জীবনের রেকর্ড যথেষ্ট ভাল। কোনও অনিয়মের নথি নেই। তাই যেন তাঁকে কড়া কোনও শাস্তি দেওয়া না হয়। শেষ পর্যন্ত  সুপ্রিম কোর্টে তাঁকে তিরস্কার করে এবং এক লক্ষ টাকা জরিমানার লঘু শাস্তি দিয়ে ছেড়ে দেয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement