৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের পরবর্তী গভর্নর হতে পারেন বাঙালি অরুন্ধতী!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 20, 2016 10:08 am|    Updated: June 20, 2016 10:08 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের শীর্ষপদে কি এবার বাঙালি মহিলা অর্থনীতিবিদ? রিজার্ভ ব্যাঙ্কের পরবর্তী গভর্নর হিসাবে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারপার্সন অরুন্ধতী ভট্টাচার্যর নাম আলোচনায় উঠে আসছে৷ অবশ্য তাঁর আগে আছেন আরও একজন৷ তিনি হলেন গুজরাতি অর্থনীতিবিদ উরজিত্‍ প্যাটেল৷ বর্তমানে তিনি আবার আরবিআই-এর চার ডেপুটি গভর্নরের একজন৷ গভর্নর রঘুরাম রাজনের একনিষ্ঠ সৈনিক হিসাবেই তাঁর পরিচিতি৷ শুধু তাই নয়, রাজন গভর্নর পদ থেকে নিজের বিদায়ঘণ্টা নিজেই বাজিয়ে দেওয়ার পর থেকে তাঁর উত্তরসূরী হিসাবে আরও পাঁচ অর্থনীতিবিদের নাম নিয়ে নানা মহলে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে৷ তাঁর মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রের অর্থ বিষয়ক দফতরের প্রাক্তন সচিব রাকেশ মোহন, আরবিআইয়ের প্রাক্তন ডেপুটি গভর্নর সুবীর গোকর্ণ, কেন্দ্রের প্রাক্তন মুখ্য অর্থনৈতিক পরামর্শদাতা তথা বন্ধন ব্যাঙ্কের নন-এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান অশোক লাহিড়ী, ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জের কর্তা অশোক চাওলা, কেন্দ্র সরকারের প্রাক্তন অর্থসচিব বিজয় কেলকার এবং প্রাক্তন কম্পট্রোলার অফ অডিটর জেনারেল বিনোদ রাই৷ অবশ্য সরকারিভাবে এই বিষয়ে কোনও ইঙ্গিত এখনই মেলেনি৷

(রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর পদে ফিরতে চান না রাজন)

রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার গভর্নর পদে রঘুরাম গোবিন্দ রাজনের কার্যকালের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৪ সেপ্টেম্বর৷ তার আগেই মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনার দাবিদার রাজনকে দ্বিতীয় দফায় পদে রাখার জন্য যেমন একটি মহল সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করছে, তেমনই অন্য একটি পক্ষ চাইছে ঠিক এর উল্টোটাই৷ এই দোটানা পরিস্থিতিতে শনিবার রাজন তাঁর সহকর্মীদের উদ্দেশে একটি চিঠি লিখে আরবিআইয়ের গভর্নর পদে তাঁর দ্বিতীয়বার থাকার জল্পনায় জল ঢেলে দিয়েছেন৷ এরপরই দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মহলে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে৷ আর সেই সঙ্গেই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের পরবর্তী গভর্নর কে হতে পারেন, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে৷ চিঠি লেখার আগের দিনই রাজন একটি পত্রিকাকে সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, আরবিআই যে কোনও গভর্নরের হাতেই টিকে থাকবে৷ অফিসকে কোনও ব্যক্তিবিশেষের অনুরূপ করা বড় কথা নয়৷ আরবিআই প্রতিষ্ঠান একজন গভর্নরের চেয়ে অনেক বড়৷

রাজনকে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের পদ থেকে সরানোর জন্য আরএসএস এবং বিজেপির মন্ত্রীরা ‘লবি’ করেছেন বলে অভিযোগ বিরোধীদের৷ এই তাৎপর্যপূর্ণ সময়ে রাজনের সরে যাওয়াকে ‘অপ্রীতিকর’ বলেই মনে করছেন তাঁরা৷ কেন্দ্রের এনডিএ সরকারকে কটাক্ষ করে প্রবীণ কংগ্রেস নেতা বীরাপ্পা মইলি বলেছেন, বর্তমান সময়ে রঘুরাম রাজনের মতো ব্যক্তিত্বের কোনও স্থান নেই৷ বিজেপির মুখপাত্র, বাণিজ্যমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ এবং সুব্রহ্মণ্যম স্বামীর মতো নেতা এবং নাগপুর আরএসএস শিবির তাঁকে সরাতে লবি করেছেন৷ দেশের জন্য এটি অত্যন্ত অপ্রীতিকর ঘটনা৷ একই সুরে আরজেডির মুখপাত্র মনোজ ঝা বলেছেন, আরবিআই গভর্নরের করা পদক্ষেপে মানুষ নিজেদের নিরাপদ ও সুরক্ষিত মনে করছিল৷ তাঁর কটাক্ষ, রাজন ঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছেন৷ কারণ দ্বিতীয় দফায় তাঁর পদে থেকে যাওয়ার অর্থ স্বামীর মতো ব্যক্তিদের সঙ্গে কাজ করা৷ প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম বলেছেন, রাজনের বিদায়বার্তায় তিনি ব্যথিত৷ কিন্তু কিছুদিন যাবত্‍ যে সমস্ত ঘটনা ঘটছিল তাতে মোটেই বিস্মিত নন তিনি৷

রাজনকে আরবিআইয়ের পদে দ্বিতীয়বার না রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে আবেদন জানিয়েছিলেন বিজেপির রাজ্যসভা সাংসদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামী৷ ঠিক একইভাবে রাজনের কার্যকালের মেয়াদ বৃদ্ধির ব্যাপারে অমত প্রকাশ করেন নির্মলা সীতারমণ৷ শেষবেলাতেও রাজনকে কটাক্ষ করার সুযোগ হাতছাড়া করেননি স্বামী৷ বিদায়ী গভর্নর সম্পর্কে তাঁর মন্তব্য, উনি আমেরিকায় ফিরে যেতে চান৷ যাই হোক না কেন, বাস্তব পরিস্থিতি গোপন করতে তাঁর ‘ডুমুরের পাতা’ চাই৷ জনগণের এই নিয়ে কোনও আক্রোশ নেই এবং তাঁর শুভ বিদায় কামনা করে৷ শনিবারই অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেছিলেন, সরকার রাজনের ইচ্ছাকে সম্মান করে৷ পরবর্তী গভর্নর বাছাইয়ের জন্য শীঘ্রই চিন্তাভাবনা শুরু হবে৷ এরপরই সম্ভাব্য উত্তরসূরীদের নাম উঠে আসতে থাকে৷ সেই তালিকার প্রথমে রয়েছেন উরজিত্‍ প্যাটেল৷ ৫২ বছর বয়সি প্যাটেল ২০১৩ সাল থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের অর্থনৈতিক নীতি নির্ধারণ কমিটির প্রধানের পদ সামলাচ্ছেন৷ চলতি বছরের জানুয়ারিতে তাঁর কার্যকালের মেয়াদ আরও তিন বছর বর্ধিত করা হয়েছে৷ দ্বিতীয় নম্বরে থাকা ৬০ বছর বয়সি অরুন্ধতী ভট্টাচার্যর চলতি বছরেই স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার প্রধান পদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে৷ এনপিএর হার দক্ষতার সঙ্গে কমিয়ে আনার জন্য বিনিয়োগকারীদের কাছে ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছেন অরুন্ধতী৷ ফোর্বস পত্রিকার ১০০ ক্ষমতাশালী নারীর মধ্যে স্থান পেয়েছেন এই বাঙালি অর্থনীতিবিদ৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement