৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

গরুর চুরির অভিযোগ, মাথা মুড়িয়ে নিগ্রহ ২ দলিত যুবককে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 12, 2018 1:11 pm|    Updated: January 12, 2018 1:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গরু চুরির অভিযোগে ফের দলিতদের নিগ্রহের ঘটনা ঘটল বিজেপিশাসিত উত্তরপ্রদেশে। অভিযোগ, দুজন দলিত যুবককে মাথায় ন্যাড়া গোটা গ্রাম ঘুরিয়েছে হিন্দু যুবা বাহিনীর সদস্যরা। শুধু তাই নয়, ওই দুই যুবকের গলা ‘আমরা গরু চোর’ প্ল্যাকার্ডও ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। গরু চুরি অভিযোগে আবার আক্রান্তদের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। হিন্দু যুবা বাহিনীর সদস্যদের পালটা এফআইআর করেছেন আক্রান্তদের একজন। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বালিয়ায়। প্রসঙ্গত, গোরক্ষপুরের সাংসদ থাকাকালীন এই হিন্দু যুবা বাহিনী তৈরি করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ স্বয়ং।

[জাতে দলিত, লকআপে যুবককে জুতো চেটে ক্ষমা চাইতে বললেন ডিসিপি]

দলিত ইস্যুতে ফের উত্তরপ্রদেশে মুখ পুড়ল বিজেপির। গরু চুরির অভিযোগে দুই দলিত যুবককে নিগ্রহ করার অভিযোগ উঠল হিন্দু যুবা বাহিনীর বিরুদ্ধে। উত্তরপ্রদেশের বালিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন উমা রাম নামে এক দলিত যুবক। নিজের বয়ানে ওই দলিত যুবক জানিয়েছেন, সোমবার রাতে দুটি গরু নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি ও তাঁর এক পরিচিত যুবক। ওই যুবকও জাতে দলিত। তাঁদের পথ আটকান হিন্দু যুবা বাহিনীর সদস্যরা। গরু দুটিকে তো কেড়ে নেওয়া হয়ই, উলটে চুরির অভিযোগে মাথা ন্যাড়া করে দেয় অভিযুক্তরা। এরপর ওই দলিত যুবক গলা প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে গোটা গ্রাম ঘোরানো হয়। প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল ‘আমরা গরু চোর’। শুধু তাই নয়, আক্রান্ত দলিত যুবকদের বিরুদ্ধে আবার থানায় গরু চুরির অভিযোগে এফআইআরও করেছেন প্রবীণ শ্রীবাস্তব নামে হিন্দু যুবা বাহিনীর এক সদস্য। ওই দলিত যুবকের ভিত্তিতে ১৫ জন অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা রজু করেছে পুলিশ। বালিয়ার ডেপুটি পুলিশ সুপারকে ঘটনার তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশ।

[‘মাদ্রাসায় পড়েছি বলে কি আমি জঙ্গি?’, প্রশ্ন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর]

প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশে দলিত নিগ্রহের ঘটনা এই প্রথম নয়। এরআগেও বেশ কয়েকবার যোগীর রাজ্যে আক্রান্ত হয়েছেন দলিতরা। বস্তুত, দিন কয়েক আগে খোদ মোদির রাজ্য গুজরাটে লকআপে এক দলিত যুবককে বেধড়ক মারধর করে চটি চাটতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠেছিল পুলিশের বিরুদ্ধে। যদিও অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে গুজরাট পুলিশ।

[হজ হাউসের পর শৌচাগারেও গেরুয়া রঙের ছোপ যোগীর রাজ্যে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement