BREAKING NEWS

২ মাঘ  ১৪২৭  শনিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশে সিলমোহর DCGI-এর, ভারতে ছাড়পত্র পেয়ে গেল করোনার দুটি টিকা

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: January 3, 2021 11:21 am|    Updated: January 3, 2021 11:34 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অপেক্ষার অবসান। ভারতে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারে ছাড়পত্র পেয়ে গেল দুটি করোনার টিকা। সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটির সুপারিশ মেনে কোভিশিল্ড এবং কোভ্যাক্সিনের ব্যবহারে ছাড়পত্র দিয়ে দিল ড্রাগ কন্ট্রোল জেনারেল অফ ইন্ডিয়া। সেই সঙ্গে জাইদাস ক্যাডিলা হেলথকেয়ারের তৈরি ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালেও দেওয়া হল ছাড়পত্র।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার (Oxford-AstraZeneca) তৈরি কোভিশিল্ড, ভারত বায়োটেকের তৈরি ‘‌কোভ্যাক্সিন’, এবং ফাইজারের তৈরি করোনার টিকা ভারতে জরুরি ব্যবহারে ছাড়পত্র চেয়ে আবেদন করেছিল। নতুন বছরের প্রথম দিন অর্থাৎ, শুক্রবার অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা খতিয়ে দেখতে বৈঠকে বসেছিল সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটি। বিস্তারিত আলোচনা এবং যাবতীয় নথি খতিয়ে দেখার পর অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিন ব্যবহারে জরুরি ভিত্তিতে ছাড়পত্র দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ওই কমিটি। নিজেদের সুপারিশ DCGI ভি জি সোমানির কাছে পাঠিয়ে দেয় তারা। জানানো হয়  কোভিশিল্ড করোনা রুখতে ৭০.৪২ শতাংশ কার্যকর। একইভাবে শনিবার ফের বৈঠকে বসেছিলেন ভ্যাকসিন সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ কমিটির সদস্যরা। দীর্ঘক্ষণ আলোচনার পর ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিনকেও ছাড়পত্র দেওয়ার সুপারিশ করে সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটি। কমিটির সদস্যরা জানান, জরুরি ভিত্তিতে কোভিডের সম্ভাব্য টিকা হিসেবে কোভ্যাক্সিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

[আরও পড়ুন: ‘ভ্যাকসিনের সঙ্গে রাজনীতির সম্পর্ক নেই’, অখিলেশকে বিঁধে টিকার পক্ষেই সওয়াল ওমরের]

সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটির এই জোড়া সুপারিশেই ছাড়পত্র দিল DCGI। রবিবার সাংবাদিক বৈঠক করে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া সরকারিভাবে এই দুটি ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা ঘোষণা করে দিলেন। সেই সঙ্গে টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে যেসব গুজব রটেছিল, তাও পুরোপুরি খারিজ করে দিলেন DCGI ভি জি সোমানি। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন,”আমরা নিরাপত্তা নিয়ে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত না হয়ে কোনও ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র দেব না। সব ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেই সামান্য জ্বর, মাথা যন্ত্রণা বা বমি বমি ভাবের মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। এর বাইরে বাকি সবটাই গুজব।” এবার সরকার চাইলেই দেশজুড়ে টিকাকরণ শুরু করতে পারে। সেক্ষেত্রে আর কোনও নিয়মের জটিলতা রইল না। এবার কোভিশিল্ডের প্রস্তুতকারক সেরাম ইনস্টিটিউট এবং কোভ্যাক্সিনের প্রস্তুতকারক ভারত বায়োটেকের সঙ্গে চুক্তি করবে কেন্দ্র। তারপরই দেশের ৩ কোটি ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারকে বিনামূল্যে দেওয়া হবে করোনার টিকা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement