Advertisement
Advertisement

দেশের প্রধান বিচারপতিকে ইমপিচ করার প্রস্তাব খারিজ উপ-রাষ্ট্রপতির

কংগ্রেসের আনা প্রস্তাব খারিজ৷

Venkaiah Rejects 'Untenable' Impeachment Motion Against CJI, Says It Undermines Judiciary's Independence
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:April 23, 2018 2:21 pm
  • Updated:April 23, 2018 4:39 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রকে ইমপিচ করার প্রস্তাব খারিজ করলেন উপ-রাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডু৷ আজ সকালে বিজ্ঞপ্তি জারি করে কংগ্রেসের তোলা ইমপিচমেন্ট প্রস্তাব খারিজ করেন তিনি৷ কংগ্রেসের প্রস্তাব খারিজের পেছনে ১০ পাতার কারণ ব্যাখ্যা করা হয়েছে৷ তবে, অভিযোগ খারিজ হওয়ার পরই কংগ্রেসের তরফে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷

হায়দরাবাদ সফর কাটছাঁট করে আজ সোমবার সংবাদমাধ্যমে উপ-রাষ্ট্রপতি সাফ জানিয়ে দেন, প্রস্তাবের সপক্ষে যথাযথ যুক্তি ও নির্দিষ্ট সংখ্যক সাংসদের সমর্থন না থাকার কারণে দেশের প্রধান বিচারপতিকে পদ থেকে অপসারণের দাবি বাতিল করা হয়েছে৷

Advertisement

 চালক মুসলিম হওয়ায় ওলা বুকিং বাতিল করলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্য ]

Advertisement

তবে, প্রস্তাব বাতিল হলেও হাল ছাড়তে নারাজ কংগ্রেস৷ আগামিদিনে একইভাবে লড়াই আন্দোলন জারি থাকবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ মূলত, মামলা বণ্টনে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের চারজন প্রবীণ বিচারপতি৷ আদালতে সাংবাদিক সম্মেলন করে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তাঁরা৷ পরে দেশের প্রধান বিচারপতিকে ইমপিচ করার আবেদন জানিয়ে উপ-রাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডুকে নোটিস দেয় বিরোধীরা। নোটিস স্বাক্ষর করেছেন কংগ্রেস, সিপিএম, সিপিএম, সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি-সহ সাতটি রাজনৈতিক দলের ৬৪ জন সাংসদ৷

দেশের প্রধানবিচারপতির অপসারণের দাবি নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি জাতীয় রাজনীতির আঙিনায়৷ বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয়ার্ধ থেকে শুরু হতে থাকে বিতর্ক৷ কংগ্রেসের তরফে অভিযোগ তোলা হয়, বিচারক বিএইচ লোয়ার মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের আরজি খারিজ করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের ডিভিশন বেঞ্চের রায়, বিচারক লোয়ার মৃত্যুতে কোনও অস্বাভাবিকতা নেই। তাই সিবিআই তদন্ত নিষ্প্রয়োজন। গুজরাটে শেখ সোহরাবুদ্দিন হত্যা মামলার বিচারক ছিলেন বিএইচ লোয়া। এই মামলায় আবার অন্যতম অভিযুক্ত বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ৷ কিন্তু, ২০১৪ সালে ১ ডিসেম্বর মামলা চলাকালীন আচমকাই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান বিচারক লোয়া।

[  বিজেপিই প্রধান শত্রু, পার্টি কংগ্রেস থেকে লড়াইয়ের ডাক ইয়েচুরির ]

বিচারক লোয়ার মৃত্যুর অন্য এক বিচারকের এজলাসে শেখ সোহরাবুদ্দিন হত্যা মামলার শুনানি শেষ হয়। তিনি আবার বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে বেকসুর খালাস দিয়ে দেন৷ বিচারক লোয়ার মৃত্যুকে নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়। সিবিআই তদন্তের দাবিতে একটি জনস্বার্থ মামলা হয় বম্বে হাই কোর্টে। যদিও এই ঘটনায় কোনও অস্বাভাবিকতা খুঁজে পায়নি আদালত। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন মামলাকারী।

বিচারক লোয়ার মৃত্যুতে সিবিআই সংক্রান্ত মামলায় যেদিন রায় ঘোষণা করল সুপ্রিম কোর্ট, ঠিক তার পরের দিন উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডুর কাছে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকেই ইমপিচ করার নোটিস দেয় বিরোধীরা। নোটিসে স্বাক্ষর করলেন কংগ্রেস, সিপিএম, সিপিআই-সহ সাতটি বিরোধী দলের ৬৪ জন সাংসদ৷ যদিও আজ এই প্রস্তাব খারিজ হল৷

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ