২৭ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  শনিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকার গঠন নিয়ে টানাপোড়েন ও মহারাষ্ট্রে এনডিএ জোট ভাঙার জন্য এবার সরাসরি অমিত শাহকেই দায়ী করল শিব সেনা। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির সঙ্গে আড়াই বছরের মুখ্যমন্ত্রিত্ব নিয়ে আলোচনা হলেও তিনি তা নরেন্দ্র মোদিকে জানাননি বলেই অভিযোগ উদ্ধব ঠাকরের দলের।

[আরও পড়ুন: বেনজির! বিগত ৬ বছরে কাজ হারিয়েছেন ৯ লক্ষ মানুষ]

বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মহারাষ্ট্রের সমস্যার জন্য অমিত শাহকে দায়ী করেন শিব সেনার রাজ্যসভা সাংসদ সঞ্জয় রাউত। অভিযোগ করেন, নির্বাচনের আগে আসন সমঝোতা করার সময় এই বিষয়ে অমিত শাহের সঙ্গে কথা বলেছিলেন সেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। সেসময় রাজ্যে দুটি দলের তরফে আড়াই বছর করে মুখ্যমন্ত্রী রাখার প্রস্তাবে সম্মতি দিয়েছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। কিন্তু, এই বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে কোনও কথা বলেননি তিনি। ফলে ‘৫০-৫০ ফর্মুলা’ সম্পর্কে অন্ধকারেই ছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের আগে প্রতিটি জনসভায় নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন ফড়ণবিসই পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন। অন্যদিকে উদ্ধব ঠাকরেও প্রতিটি জনসভায় বলেছিলেন পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন শিব সেনা থেকে। এই সমস্ত দেখেও তখন কেন চুপ ছিলেন অমিত শাহ। এখন আবার অন্য কথা বলছেন। ওই সময় তিনি যদি প্রধানমন্ত্রীকে ৫০-৫০ ফর্মুলার কথা বলতেন। তাহলে আজকে মহারাষ্ট্রের অবস্থা এরকম হত না। আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে শ্রদ্ধা করি। এবং বিশ্বাস করি যে উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে অমিত শাহের মিটিংয়ে যা কথা হয়েছিল তা প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হয়নি। বিষয়টি আমাদের খুবই অবাক করেছে।’

[আরও পড়ুন: বিয়েতে ১১ লক্ষ টাকা পণে ‘না’ জওয়ানের, আশীর্বাদ হিসেবে নিলেন একটি নারকেল]

শিব সেনার রাজ্যসভার সাংসদের আরও অভিযোগ, ‘অমিত শাহ এখন বলছেন যে গোপন বৈঠকের কথা ফাঁস করছে শিব সেনা। কিন্তু, আমরা বলতে চাই ওই আলোচনাটি বালাসাহেব ঠাকরের ড্রইংরুমে হয়েছিল। যাকে আমরা মন্দির মনে করি। কিন্তু, বৈঠকের বিষয়বস্তুর কথা অস্বীকার করে ওই মন্দির, বালাসাহেব ঠাকরে ও মহারাষ্ট্রকে অপমান করেছে বিজেপি। আর এখন উলটে আমাদের গোপন কথা ফাঁস করার জন্য অভিযুক্ত করা হচ্ছে। অমিত শাহ ওই বৈঠকে হওয়া সিদ্ধান্তের কথা অস্বীকার করার জন্যই বিষয়টি প্রকাশ্যে আনতে বাধ্য হয়েছি আমরা। নিজেদের সম্মান রক্ষার স্বার্থেই এই কাজ করতে হয়েছে।’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং