৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীর থেকে বিশেষ মর্যাদাপ্রাপ্ত রাজ্যের তকমা তুলে নিলে জঙ্গি সংগঠনে যোগ দিতে পারে স্পেশাল পুলিশ অফিসারদের (এসপিও) একটা বড় অংশ৷ এই মর্মে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশকে আগেই সতর্কবার্তা পাঠিয়েছিলেন গোয়েন্দারা৷ আর সেই তথ্যের ভিত্তিতেই ৫ আগস্ট উপত্যকা থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের আগেই ২৫০ জন স্পেশ্যাল পুলিশ অফিসারের অস্ত্র বাজেয়াপ্ত করে কেন্দ্র। সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে এমনই তথ্য৷

[ আরও পড়ুন: প্রেম প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কিশোরীকে খুন, অভিযোগ নিতে অস্বীকার পুলিশের ]

জানা গিয়েছে, পুলিশের সহকারী হিসাবে কর্মরত এই সমস্ত পুলিশ অফিসারদের আগেও টার্গেট করা হয়েছে৷ তাদের মগজ ধোলাই করে নাশকতার কাজে লাগানোর ষড়যন্ত্র করেছে জঙ্গি সংগঠনগুলি৷ জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলুপ্ত হলে, এবারও তেমন করা হত বলে আগে থেকেই গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য ছিল৷ এবং সেই নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই স্পেশ্যাল পুলিশ অফিসারদের নিরস্ত্র করার বন্দোবস্ত করে কেন্দ্র৷ কাশ্মীর পুলিশের এক শীর্ষ কর্তা জানান, এখনও বিদ্রোহ না করলেও কাশ্মীর
পুলিশের একটা অংশের মধ্যে ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি নিয়ে চাপা ক্ষোভ তৈরি হয়েছে৷ আর সেই ক্ষোভের আশঙ্কা করতে পেরেই উপত্যকায় এত বিপুল পরিমাণ সেনা মোতায়েন করেছে কেন্দ্র৷

[ আরও পড়ুন: বাড়িতে ঢুকে গুলি করে সাংবাদিক খুন উত্তরপ্রদেশে, নিহত ভাইও ]

কাশ্মীর পুলিশ সূত্রে খবর, এসপিও পদে কর্মরত পুলিশ কর্মীদের চুক্তির ভিত্তিতে কাজে নিয়োগ করা হয়। ফলে যে কোনও সময় চাকরি থেকে অব্যহতি নিতে পারে তারা৷ যে কোনও সময় কাজকর্ম ছেড়ে জঙ্গি সংগঠনে যোগ দিতে পারে তারা৷ সেক্ষেত্রে দেশ তথা উপত্যকার নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে৷ জানা গিয়েছে, এই বিষয়টিই সবচেয়ে বেশি ভাবিয়েছে কেন্দ্রকে৷ এই নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে এসপিও-দের থেকে অস্ত্র বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া চালান হয়৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং