৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দলিত বলতে কী বোঝায়? বিদেশি, অচ্ছুত, মধ্যবিত্ত নাকি উচ্চবিত্ত। কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের ষষ্ঠশ্রেণির পরীক্ষাপত্রে এসেছে এমনই প্রশ্ন। যা নিয়ে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিলেন ডিএমকে প্রধান এমকে স্ট্যালিন।

তামিলনাড়ুর কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের স্কুলে ষষ্ঠশ্রেণির প্রশ্নপত্রের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে সুর চড়িয়েছেন স্ট্যালিন। প্রশ্নপত্রে ধর্ম ও জাতপাত উঠে আসার বিরোধিতা করেছেন তিনি। লিখেছেন, সমাজে জাতিভেদের কথা যেভাবে পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে উঠে এসেছে তা দেখে তিনি হতবাক। দলিত সংক্রান্ত প্রশ্নের ছবি তুলে ধরে শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন স্ট্যালিন। এখানেই শেষ নয়। ডিএমকে প্রধানের দাবি, পড়ুয়াদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে, সংবিধান প্রণেতা বি আর আম্বেদকর কোন জাতের ব্যক্তি ছিলেন? এমনকী মুসলিমদের সংস্কৃতি নিয়েও এসেছে প্রশ্ন। জিজ্ঞেস করা হয়েছে, মুসলিমরা সাধারণত কী করে থাকে? চারটি অপশনের মধ্যে বেছে নিতে হবে একটি। বিকল্পের মধ্যে রয়েছে, মুসলিমরা বাড়ির মেয়েদের স্কুলে যেতে দেয় না। তারা সকলে নিরামিষাশী। রোজার সময় তারা সারা রাত না ঘুমিয়ে কাটায়। নাকি উপরের সবগুলিই। কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রককে এনিয়ে অভিযোগও জানিয়েছেন তিনি। যাঁরা প্রশ্নপত্র তৈরি করেছেন, তাঁদের কড়া শাস্তির দাবি করেছেন স্ট্যালিন।

[আরও পড়ুন: সরকারি হাসপাতালে মিলবে না বিনামূল্যের চিকিৎসা, নয়া ফরমান ত্রিপুরায়]

নেটদুনিয়াতেও এধরনের প্রশ্নপত্র নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। অনেকেই বলছেন, এতে ছাত্রছাত্রীদের উপর খারাপ প্রভাব পড়ছে। এর মাধ্যমে জাতি বৈষম্যই তীব্র হয়ে উঠছে। কিন্তু কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, এই প্রশ্নপত্রটি তাদের নয়। এমন কোনও প্রশ্নপত্র তৈরি করা হয়নি। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা ছড়িয়ে দেওয়ার আগে সত্যিটা সকলের জানা উচিত।

[আরও পড়ুন: চাঁদের মাটিতেই হদিশ মিলল ল্যান্ডার বিক্রমের, নিশ্চিত করলেন ইসরো প্রধান]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং