২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  শৌচাগারে স্ত্রীকে যৌন সঙ্গমের প্রস্তাব দিয়েছিলেন স্বামী৷ রাজি হননি মহিলা৷ আর সেই রোষেই স্ত্রী’র উপর অকথ্য চালানোর অভিযোগ উঠল স্বামী এবং শ্বশুর বাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে৷ জানা গিয়েছে, সম্প্রতি এই মর্মে গুজরাটের গোমতিপুর পুলিশ স্টেশনে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই মহিলা৷ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ৷

[ আরও পড়ুন: ‘কোনও শর্ত নেই, কবে আসব বলুন’, কাশ্মীরের রাজ্যপালকে তীব্র কটাক্ষ রাহুলের]

বছর উনিশের ওই অভিযোগকারিনীর দাবি, চার মাস আগে তাঁর বিয়ে হয়৷ বিয়ের পর থেকেই ভাসুর তাঁর শ্লীলতাহানি করত৷ একা পেলেই তাঁকে শারীরিক ভাবে ভাবে নির্যাতন করত৷ যৌতুকের দাবিতে তাঁর উপর অত্যাচার চালাত শ্বশুর বাড়ির লোকজন৷ বাপের বাড়ি থেকে যৌতুক নিয়ে আসার কথা বলা হত৷ না হলেই চলত অকথ্য অত্যাচার৷ এবং সমস্তটাই হত স্বামীর মদতে৷ মহিলার অভিযোগ, এরপর একদিন তাঁর স্বামী বাথরুমে যৌন সম্ভম করার প্রস্তাব দিলে, তিনি তা করতে অস্বীকার করেন৷ এরপরই অত্যাচারের মাত্রা আরও বেড়ে যায়৷ একটা সময় পর, গোটা বিষয়টা সহ্যের বাইরে চলে গেলে, বাপের বাড়ি ফিরে আসেন অভিযোগকারিনী৷ পরিবারের লোকদের সমস্ত বিষয়টা খুলে বলেন৷ এবং তাঁদের পরামর্শ ও সহায়তায় পুলিশের দ্বারস্থ হন৷

[ আরও পড়ুন: জলপথে ঢুকতে পারে ‘সমুন্দরি জেহাদি’রা, হাই অ্যালার্ট দেশজুড়ে ]

পুলিশ সূত্রে খবর, মহিলার কাছ থেকে অত্যাচারের বিবরণ শুনে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮-এ, ৩৫৪,৩২৩, ২৯৪-এ ও ১১৪ ধারায় মামলা রুজু  হয়েছে৷ যার মধ্যে রয়েছে বধূ নির্যাতন, ইচ্ছাকৃত আঘাত এবং আপত্তিজনক শব্দের ব্যবহারের মামলা রয়েছে৷ চলতি বছরের জুলাই মাসে এই একই ধরনের ঘটনার সাক্ষী ছিল উত্তরপ্রদেশর সিদ্ধার্থনগর জেলা৷ তার সঙ্গে যৌন সম্পর্কে আবদ্ধ হতে রাজি না হওয়ায়, স্ত্রীকে হত্যা করেন এক ব্যক্তি৷ পরে নিজের যৌনাঙ্গও কেটে ফেলেন  অভিযুক্ত৷ তাকে ভরতি করা হয় গোরক্ষপুর হাসপাতালে৷ পরে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং