BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্বামীকে খুন করে বাড়িতেই রমরমিয়ে মধুচক্রের আসর, ধৃত মক্ষীরানি

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: December 8, 2017 5:06 am|    Updated: September 20, 2019 4:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাড়িতেই রমরমিয়ে চলত মধুচক্র। অভিযোগে গ্রেপ্তার মক্ষীরানি। তদন্তে নেমে মাথায় হাত পুলিশকর্তাদের। ওই বাড়িতে যে শুধু মধুচক্রই চলত, তা নয়! বাড়ির আনাচে কানাচে পোঁতা রয়েছে প্রচুর কঙ্কালও। পুলিশি জেরার মুখে ধৃত মহিলা স্বীকার করেছে, নিজের স্বামীকেও খুন করে ওই বাড়িতে পুঁতে দিয়েছিল ১৩ বছর আগে। উদ্ধার হয়েছে ওই কঙ্কাল, পাঠানো হয়েছে ফরেনসিক তদন্তের জন্য। অন্যান্য দেহাবশেষের খোঁজে চলছে তল্লাশি।

[মধুচক্রের পাল্লায় লোকসভার সাংসদ]

মহারাষ্ট্রের ডান্ডিপারার বয়সার থেকে মূল অভিযুক্ত ৩৭ বছরের সরিতা ভারতীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত ৪ ডিসেম্বর তার কবজা থেকে বেশ কয়েকজন যুবতীও উদ্ধার করা হয়েছে। ওই যুবতীদের ভিনরাজ্য থেকে এনে মহারাষ্ট্রে নিজের বাড়িতে লুকিয়ে রাখত সরিতা। পরে সেখান থেকে বিভিন্ন ডান্স বারে তাঁদের জোর করে পাঠাত। ওই বাড়িতেও নিয়মিত বসত মধুচক্রের আসর। আসত নানান খদ্দের। চলত মোটা টাকার লেনদেন। নানা রাজ্য থেকে লোপাট হয়ে যাওয়া ওই যুবতীদের অভিভাবকদের অভিযোগ পেয়ে অভিযানে নাম পুলিশ। তখনই সরিতার খোঁজ মেলে। তার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে আটক যুবতীদের উদ্ধার করা হয়। এই পর্যন্ত তাও ঠিক ছিল। কিন্তু পুলিশি জেরার মুখে সরিতা জানায়, তার স্বামী এই মধুচক্রের আসরের বিরোধিতা করায় তাঁকে খুন করে ১৩ বছর আগেই সেপটিক ট্যাঙ্কে ভরে রেখেছিল সে।

[নাবালিকা ছাত্রীদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তুলে পোস্ট, বিতর্কে শিক্ষক]

skeleton_web

[মধুচক্র চালানোর অভিযোগে গ্রেফতার বাঙালি মডেল-অভিনেত্রী]

শুনেই তাজ্জব হয়ে যান পুলিশ অফিসাররা। কোনও স্ত্রী এমন করতে পারে তাঁর স্বামীর সঙ্গে, এ যেন কল্পনারও অতীত। ডিএসপি ফাতেহসিং পাটিল জানিয়েছেন, বেআইনি নারীপাচারের অভিযোগে সরিতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে গত মঙ্গলবার। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, শুধু মধুচক্রই নয়, একাধিক ‘প্রেমিক’কেও খুন করে বাড়িরই পৃথক পৃথক প্রান্তে পুঁতে দিত সে। বাড়ির মেঝে খুঁড়ে পুলিশ বেশ কিছু দেহাবশেষ উদ্ধার করেছে। কঙ্কালের খোঁজে চলছে তল্লাশি। সরিতা এও জানিয়েছে, ঘুমের মধ্যে স্বামীর মাথায় জোরাল আঘাত করে তাঁকে খুন করেছে সে। পুলিশ খুনের কারণ স্পষ্টভাবে না জানালেও প্রাথমিক তদন্তে তাঁদের অনুমান, স্ত্রীকে এই নোংরা ব্যবসায় দেখতে পারতেন না সহদেব ভারতী। পথের কাঁটা সরাতেই তাঁকে খুন করে মূল অভিযুক্ত। তাকে দুদিনের পুলিশি হেফাজতে পাঠান হয়েছে।

[রাত নামলেই মন্দারমণির সৈকতে হাতছানি ‘সানি’, ‘ক্যাটরিনা’দের!]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement