BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারতীয় পোশাকে আপত্তি, শিক্ষিকাকে ঢুকতে দিল না রেস্তরাঁ

Published by: Paramita Paul |    Posted: March 15, 2020 3:45 pm|    Updated: March 15, 2020 4:10 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সনাতনী ভারতীয় পোশাক পরিহিত মহিলাকে রেস্তরাঁয় ঢুকতে বাধা। রেস্তরাঁর কর্মীরা সাফ জানিয়ে দেন, ‘এথনিক’ পোশাক পরে সংশ্লিষ্ট রেস্তরাঁয় ঢোকা যাবে না। এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় গোটা ঘটনার ভিডিও পোস্ট করে ক্ষোভ উগড়ে দেন ওই মহিলা। প্রশ্ন তোলেন, ভারতে ব্যবসা করা রেস্তরাঁ যদি ভারতীয় পোশাকে আপত্তি জানায়, তাহলে ভারতীয়রা কোথায় যাবে? নিমেষে পোস্টটি ভাইরালও হয়ে যায়। শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে তড়িঘড়ি ক্ষমা চেয়ে নেন দক্ষিণ দিল্লির সংশ্লিষ্ট রেস্তরাঁ কর্তৃপক্ষ। জানান, “ওই কর্মীদের আচরণে আমরা দুঃখিত। ভারতীয় পোশাক নিয়ে রেস্তরাঁ কর্তৃপক্ষের কোনও আপত্তি নেই।”

গত মঙ্গলবার দক্ষিণ দিল্লির অভিজাত এলাকা বসন্ত কুঞ্জের রেস্তরাঁ ‘কাইলিন অ্যান্ড আইভি’-তে গিয়েছিলেন সংগীতা কে নাগ। তিনি গুরগাঁওয়ের পাথওয়ে সিনিয়র স্কুলের প্রিন্সিপাল। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার ভিডিওতে তিনি অভিযোগ করেন, “কাইলিন অ্যান্ড আইভিতে এক বিস্ময়কর অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হলাম। সনাতানী ভারতীয় পোশাক পরার জন্য রেস্তরাঁয়া ঢুকতে দেওয়া হল না। সেখানে ‘ক্যাজুয়াল স্মার্ট’ পোশাকে আপত্তি নেই, কিন্তু ভারতীয় সনাতনী পোশাকে আপত্তি রয়েছে। তাহলে ভারতীয় হিসাবে গর্বিত হয়ে লাভ কি?” দ্রুত ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।

[আরও পড়ুন : জরিমানা আদায়ে মরিয়া, অর্ডিন্যান্সের পর এবার ট্রাইব্যুনাল গঠনের পথে যোগী সরকার]

এরপরই দ্রুত ব্যবস্থা নেন ‘কাইলিন অ্যান্ড আইভি’-র ডিরেক্টর সৌরভ খানিজো। পরিস্থিতি সামাল দিতে ওই শিক্ষিকার কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন তিনি। বলেন, “ঘটনাটি আইভি তে নয়, নতুন বার কিনলিনে ঘটেছে। আমাদের এখানে পোশাক নিয়ে কোনও বাধানিষেধ নেই। স্রেফ দৃষ্টিকটু হাওয়াই চটি আর শর্টস ছাড়া।” সৌরভ আরও জানান, “ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারার পরই আমি ব্যক্তিগতভাবে সংগীতার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছি। সংশ্লিষ্ট কর্মীর বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। তবে পোশাক সম্পর্কে ওই মতামত একদমই ওই কর্মী নিজস্ব। এর সঙ্গে সংস্থার কোনও যোগ নেই।”

[আরও পড়ুন : করোনা রুখতে অক্লান্ত লড়াই, দেশের কাছে অনুপ্রেরণা কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ‘শৈলজা টিচার’]

তবে এই ঘটনায় বেজায় ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা। এমনকী রেস্তরাঁটি বন্ধ করে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের কন্যা তথা কংগ্রেস নেত্রী শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement