BREAKING NEWS

১৯ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২ জুন ২০২০ 

Advertisement

‘রিভিউ পিটিশন দাখিল করব না’, সুপ্রিম নির্দেশকেই স্বাগত জানালেন সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 9, 2019 9:34 pm|    Updated: November 9, 2019 9:34 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এরপরই জল্পনা শুরু হয় বাবরি মসজিদের পক্ষে থাকা সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রিভিউ পিটিশন দাখিল করবে। কিন্তু, শনিবার বিকেল বেলাতেই সেই জল্পনায় জল ঢেলে দেন উত্তরপ্রদেশ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান জাফর আহমেদ ফারুকি। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়কে সম্মান জানিয়ে স্বাগতও জানান।

[আরও পড়ুন: ‘প্রধানমন্ত্রী মোদিকে মুন্নাভাইয়ের স্টাইলে জড়িয়ে ধরতে চাই’, বলছেন সিধু]

শনিবার বিকেলে একটি বিবৃতি দিয়ে জাফর আহমেদ ফারুকি বলেন, ‘অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছে তাকে আমরা স্বাগত জানাই। পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশ সেন্ট্রাল সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে এই রায় আমরা মেনে নিচ্ছি বলে সবাইকে জানাতে চাই। পরিষ্কার করে দিতে চাই যে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে কোনও রকম রিভিউ পিটিশন আমরা দাখিল করব না।’

আজ সকালে রায় ঘোষণার পরে সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে সাংবাদিক বৈঠক করেছিলেন সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের পক্ষে থাকা অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের আইনজীবীরা। সেসময় আইনজীবী জাফর ইয়াব জিলানি বলেন, ‘আমরা আদালতের রায়ে সন্তুষ্ট নই। তাই এর বিরুদ্ধে রিভিউ পিটিশন দাখিল করব।’ কিন্তু, বিকেল গড়াতেই তাঁর বক্তব্যের পুরো বিপরীত পথে হাঁটল উত্তরপ্রদেশের সুন্নি সেন্ট্রাল ওয়াকফ বোর্ড। চেয়ারম্যান জাফর আহমেদ ফারুকি স্পষ্ট জানাই দিলেন, ‘যদি কোনও আইনজীবী বা অন্য কেউ রিভিউ পিটিশনের কথা বলে থাকেন, তাহলে সেটা তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়। ওয়াকফ বোর্ডে এই নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি। আর এটা আমাদের উদ্দেশ্যও নয়।’

[আরও পড়ুন: কে এই রামলালা? কোন যুক্তিতে বিতর্কিত জমির মালিকানা পেল রাম জন্মভূমি ন্যাস?]

পরে এপ্রসঙ্গে আইনজীবী জিলানিকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ওই সাংবাদিক বৈঠকটি অল ইন্ডিয়া মুসলিম ল বোর্ড(এআইএমএলবি)-র তরফে করা হয়েছিল। সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের সঙ্গে এর কোনও সম্পর্কে নেই। আদালতের রিভিউ পিটিশন দাখিলের বিষয়টি এআইএমএলবি-র সম্পাদক হিসেবেই জানিয়েছিলেন তিনি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement