BREAKING NEWS

১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বদলাচ্ছে মুজাফ্ফরনগরের নাম! যোগীর কাছে প্রস্তাব পেশ বজরঙ্গ দলের

Published by: Tanujit Das |    Posted: October 20, 2018 2:46 pm|    Updated: October 20, 2018 2:46 pm

Yogi govt to rename Muzaffarnagar as Laxminagar

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঐতিহ্যশালী এলাহাবাদের নাম বদলে হচ্ছে প্রয়াগরাজ৷ ইতিমধ্যে এই বিষয়ে সবুজ সংকেতও দিয়ে দিয়েছে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভা৷ এরমধ্যে মুজাফ্ফরনগরেরও নাম পরিবর্তনের দাবি তুলল গেরুয়াপন্থী সংগঠনগুলি৷ বিশেষ করে বজরঙ্গ দল৷ তাঁদের দাবি, এই শহরের নাম পালটে রাখতে হবে লক্ষ্মীনগর৷

[টানা ১০ দিন হোটেলে আটকে রেখে বাঙালি তরুণীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার দুই]

জানা গিয়েছে, এই বিষয়ে প্রস্তাবও পেশ হয়েছে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কাছে৷ স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক কপিলদেব আগরওয়ালের দাবি, মুঘল রাজত্বের আগে এই শহরের নাম নাকি লক্ষ্মীনগরই ছিল৷ পরে মুঘলরা সাম্রাজ্য বিস্তার করলে তাঁরা এই শহরের নাম পালটে দেন এবং এর নাম দেন মুজাফ্ফরনগর৷ ওই বিজেপি বিধায়ক আরও জানান যে, এই দাবি নতুন নয়৷ ১৯৮৩-তে একই দাবিতে সরব হয়েছিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদও৷ কিন্তু তখন তা করা হয়নি৷ এখন যাতে এই তাঁদের তোলা প্রস্তাব বাস্তবায়ন হয়, সেই চেষ্টাই করছে গেরুয়াপন্থী সংগঠনগুলি৷ সূত্রের খবর, ইতিমধ্যে তাঁদের ব্যানারে মুজাফ্ফরনগরের নাম লক্ষ্মীনগর হিসাবে ব্যবহার করতে শুরু করে দিয়েছে বজরঙ্গ দল৷ বিভিন্ন গ্রামে এই ব্যানার টাঙিয়েই সভা করছে তাঁরা৷ দলের অন্যতম নেতা অঙ্কুর রানার দাবি, দু’হাজার বছর আগে এই শহরের নাম ছিল লক্ষ্মীনগর৷ পরে মুঘল আমলে নাম পরিবর্তন করা হয়৷ যদিও এই বিষয়ে তাঁর কাছে কোনও তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন অজয় পাল সিং৷ যিনি ওই মুজাফ্ফরনগরের এসডি ডিগ্রি কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রধান৷

[কন্যাদের সুরক্ষা দিতে পারে আরএসএস শাখাগুলি, মন্তব্য সত্যার্থীর]

ঐতিহ্যমণ্ডিত মুগলসরাই রেল স্টেশনের নাম বদলেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার৷ সরকারিভাবে মুগলসরাইয়ের নাম বদলে রাখা হয়েছে পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় রেল স্টেশন৷ যোগীর রাজ্যে বদলাচ্ছে আরও তিন বিমানবন্দরের নাম৷ বদলের তালিকায় রয়েছে এলাহাবাদ ও ফৈজাবাদের নামও৷ বদলের দাবি তুলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷ তাঁদের দাবি, রামায়ণে অযোধ্যা, ফৈজাবাদ, বিথুর, জৈনপুর, বারাণসী, প্রতাপগড় ও বাস্তির কথা একাধিকবার উল্লেখ রয়েছে৷ সংস্কৃতির পীঠস্থান বলেও এই এলাকাগুলি পর্যটক ও হিন্দু ধর্মের প্রধান তীর্থক্ষেত্র বলে পরিচিতি রয়েছে৷ ভাটকুন্ড ও সরযূ নদীকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা প্রাচীন ভারতের ঐতিহ্য এখনও বহমান৷ কিন্তু, ঐতিহ্য ধরে রাখলেও ‘নাম’-এই আপত্তি রয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে