৫ মাঘ  ১৪২৫  রবিবার ২০ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তাহলে কি নরেন্দ্র মোদির বিকল্প খোঁজা শুরু করে দিল বিজেপি? ‘হিন্দুত্বের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর’ যোগী আদিত্যনাথই কি বিজেপির পরবর্তী লোকসভায় বিজেপির মুখ হতে চলেছেন? প্রশ্নটি উঠে গেল বিজেপি ঘেঁষা একটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের পোস্টারে। গতকাল রাতে উত্তরপ্রদেশের রাজভবনের সামনে একটি বড়সড় পোস্টার লাগায় উত্তরপ্রদেশ নবনির্মাণ সেনা। তাতে লেখা মোদি ‘জুমলাবাজ’ হিন্দুত্বের ব্র্যান্ড যোগী আদিত্যনাথকে প্রধানমন্ত্রী করা হোক। সম্প্রতি বিজেপির সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতাদের তালিকায় এক্কেবারে উপরের সারিতে উঠে এসেছেন যোগী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, এবং সভাপতি অমিত শাহর সঙ্গেই উচ্চারিত হয় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর নাম। অনেকেই মনে করছেন অদূর ভবিষ্যতে মোদির উত্তরসূরি যে যোগীই হতে চলেছেন, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

[‘প্রিয়াঙ্কাকে নিয়ে দেশ ছেড়ে পালাব না’, ইডি প্রসঙ্গে মেজাজ হারালেন রবার্ট]

এরই মধ্যে লখনউতে রাজভবনের সামনে এই পোস্টার বাড়তি তাৎপর্যপূর্ণ। শুধু রাজভবনের সামনে নয়, লখনউ শহরের একাধিক জায়গায় এই পোস্টার লাগানো হয়েছে। যার একদিকে লেখা ‘জুমলেবাজি কা নাম মোদি’ অন্যদিকে লেখা ‘হিন্দুত্ব কা ব্র্যান্ড যোগী’। দুই লেখার মাঝখানে ইংরেজিতে লেখা ভার্সাস। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সরাসরি লড়াই যোগী আর মোদির। এই পোস্টারকে অবশ্য ভালভাবে নেয়নি উত্তরপ্রদেশের শাসকদল। লখনউতে সমস্ত পোস্টার নামিয়ে দিয়েছে পুলিশ। সংগঠনটির বিরুদ্ধে হিংসায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে এফআইআরও দায়ের করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

[রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর দুর্নীতিগ্রস্ত, দলের অস্বস্তি বাড়িয়ে মন্তব্য সুব্রহ্মণ্যম স্বামীর]

উত্তরপ্রদেশ নবনির্মাণ সেনা সরাসরি বিজেপির সঙ্গে যুক্ত না হলেও, হিন্দুত্ববাদী সংগঠনটি বিজেপি ঘেঁষা। যদিও, নেতৃত্বের সঙ্গে মতের মিল না হাওয়ায় আগামী লোকসভায় আলাদা প্রার্থী দেওয়ার কথা ভাবছে সংগঠনটি। রাজস্থানের ভয়াবহ আফরাজুল হত্যাকাণ্ডের নায়ক শম্ভুলাল রেগারকে আগ্রা থেকে প্রার্থী করতে চলেছে উত্তরপ্রদেশ নবনির্মাণ সেনা। সংগঠনটির সভাপতি অমিত জানি বলছেন, “হ্যাঁ আমরা এই পোস্টার লাগিয়েছি। কারণ বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল দেখিয়ে দিয়েছে যোগী আদিত্যনাথ প্রচারে না গেলে বিজেপি একটি আসনও জিতত না। “

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং