৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির পর সোমবার সকাল থেকে ধীরে ধীরে পরিষ্কার হচ্ছে আকাশ। কিন্তু কয়েকদিনের বৃষ্টির রেশ এখনও কাটেনি। সোমবারও কার্যত বিপর্যস্ত জনজীবন। বিভিন্ন প্রান্তে একাধিক এখনও জমে রয়েছে জল। আর তাতেই নেমে এসেছে বিপদ। জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে সোমবারও মৃত্যু হল একজনের। সোমবার সকালে দক্ষিণ বন্দর থানার অন্তর্গত খিদিরপুরের একটি গোডাউনের ভিতর বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। নিরাপত্তার স্বার্থে ইতিমধ্যেই বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন করা হয়েছে ওই এলাকা।   

[আরও পড়ুন:প্রেসিডেন্সি সংশোধনাগারে বন্দির উপর হামলা, গুরুতর আহত কুখ্যাত দুষ্কৃতী]

শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। রবিবার পর্যন্ত টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন হয়ে পড়েছে শহরের অধিকাংশ এলাকা। বাড়ির ভিতরেও ঢুকে পড়েছে জল। ঘরে-বাইরে জল যন্ত্রণার জেরে প্রবল সমস্যায় পড়তে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। রবিবার পর্যন্ত জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে খিদিরপুর এলাকায় মৃত্যু হয়েছিল ৩ জনের। সোমবার সকালে জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল আরও একজনের।

জানা গিয়েছে, জলমগ্ন খিদিরপুরের একটি গোডাউনে কাজ করতেন সত্যকান্ত রাও নামে ওড়িশার বাসিন্দা ওই ব্যক্তি। সেখানেই থাকতেন তিনি। সোমবার সকালে স্থানীয়রা সত্যকান্তবাবুকে গোডাউনের সামনে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপরই খবর দেওয়া হয় দক্ষিণ বন্দর থানায়। পুলিশ গিয়ে দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, সোমবার সকালে জলের মধ্যে দাঁড়িয়েই সুইচ বোর্ডে হাত দিয়েছিলেন তিনি। সেই সময়ই তড়িদাহত হয়ে মৃত্যু হয় সত্যকান্ত রাওয়ের।  

কয়েকদিনের বৃষ্টিতে শুধু শহর কলকাতা নয়, বিভিন্ন জেলা থেকেও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর খবর প্রকাশ্যে এসেছে। তবে সোমবার সকাল থেকেই বদলাতে শুরু করেছে আবহাওয়া। টানা বৃষ্টিপাতের থেকে রেহাই মিলেছে। নতুন করে আর বৃষ্টি না হলে কলকাতায় দুর্যোগ কাটল, তা বলাই যায়। আলিপুর হাওয়া অফিস বলছে, তেমন কোনও অঘটন না ঘটলে আজ, সোমবার থেকে আবহাওয়ার উন্নতি হতে পারে। দেখা মিলতে পারে রোদ ঝলমলে আকাশের।

[আরও পড়ুন:ঘুচল ‘মাওবাদী সমর্থক’ তকমা, ১০বছর পর বেকসুর খালাস মানবাধিকার কর্মী]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং