BREAKING NEWS

২৮ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

সপ্তাহে দুদিন ৩ ঘণ্টা সমাজকল্যাণ করলেই মিলবে জামিন! অভিনব শর্ত বিচারকের

Published by: Paramita Paul |    Posted: December 11, 2019 7:57 pm|    Updated: December 11, 2019 7:57 pm

An Images

অর্ণব আইচ: শর্তসাপেক্ষে জামিন পেলেন মধুচক্র চালানোয় অভিযুক্ত। কিন্তু বিচারকের দেওয়া শর্তের কথা শুনেই চমকে উঠছিলেন আদালত কক্ষে উপস্থিত সকলে। বিচারক এদিন জামিন দেওয়ার পর সপ্তাহে দু’দিন তিনঘণ্টা করে সমাজ কল্যাণের শর্ত রাখেন। ঘাড় পেতে সেই শর্ত মেনেও নিয়েছেন অভিযুক্ত। কিন্তু বিচারকের এই নির্দেশে মাথায় হাত পড়েছে গোয়েন্দা বিভাগের কর্তাদের। এই অভিযুক্তকে দিয়ে কী সমাজকল্যাণের কাজ করাবেন তাঁরা, তা ভেবেই কূল পাচ্ছেন তা দুঁদে পুলিশকর্তারা। 

এই ধরণের মামলায় অভিযুক্তকে এধরনের শর্তে জামিন দেওয়ার ঘটনা যে বিরল, তা একবাক্যে স্বীকার করে নিয়েছেন ওয়াকিবহাল মহল। তিনি কী ধরণের সমাজকল্যাণ করতে পারবেন, সে বিষয়েও স্পষ্ট নির্দেশিকা দিয়েছেন বিচারক। পুলিশের ধারণা, এই কাজের মাধ্যমে তাঁকে সমাজের সঠিক স্রোতে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে। জানা গিয়েছে, এর আগে ট্রাফিক আইন ভাঙলে দোষীদের ট্রাফিক সামলানোর কাজ করার রীতি চালু হয়েছিল। তবে এ ধরনের মামলায় এই শর্ত যে এক্কেবারে নতুন, তা সকলেই মানছেন।

[আরও পড়ুন : বিয়ের জন্য চাপ দেওয়ায় প্রেমিকাকে খুন, মালদহ কাণ্ডের রহস্যভেদ পুলিশের]

বেশ কিছুদিন ধরেই ফ্যামিলি স্পা-এর আড়ালে শহরে মধুচক্র ছড়িয়ে পড়েছে, সেই তথ্য আসছিল গোয়েন্দাদের হাতে। তদন্ত করতে গিয়ে গোয়েন্দারা জানতে পারেন যে, কল সেন্টারের আড়ালেও মধুচক্র চালানো হচ্ছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতেই নিউ মার্কেট, গড়িয়াহাটের ফার্ন রোড, প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড ও ভবানীপুরের চারটি কল সেন্টার ও স্পা-এ গোয়েন্দা পুলিশ ফাঁদ পাতে। রবিবার সেই সমস্ত স্পা ও কল সেন্টার থেকে বেশ কয়েকজন যৌনকর্মী-সহ ম্যানেজারদের গ্রেপ্তার করা হয়। এখই অভিযোগে প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোড থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল শিবু হাজরাকে।

[আরও পড়ুন : পুত্রশোক ভুলে দাঁড়িয়ে থেকে বউমার বিয়ে দিলেন শ্বশুর]

বুধবার আলিপুর আদালতে তোলা হলে জামিনের আর্জি জানিয়েছিলেন শিবু। আলিপুর আদালতের এসিজেএম সুব্রত মুখোপাধ্যায় তাঁর জামিন মঞ্জুর করেন। কিন্তু বেশকিছু শর্তসাপেক্ষে। এসিজেএম জানান, শিবুকে সপ্তাহে দুদিন তিনঘণ্টা করে সমাজকল্যাণ করতে হবে তাঁকে। কী ধরনের সমাজকল্যাণ, সে সম্পর্কে বিচারক জানান, বাগান করা, ট্রাফিক সামলানোর কাজ করতে পারেন তিনি। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাকে এই কাজ করতে হবে। পাশাপাশি প্রয়োজনে পুলিশও তাকে ব্যবহার করতে পারে। বিচারকের নির্দেশের পরই শিবুকে কী ধরণের কাজে ব্যবহার করা যায়, তা নিয়ে ভাবনা চিন্তা শুরু করেছেন পুলিশ কর্তারা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement