১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঘাসফুল ছেড়ে পদ্ম শিবিরে যোগ দিলেও, রাজ্য বিজেপির কারও কারও সঙ্গে সম্পর্কটা একদমই ঠিকঠাক নেই শোভন-বৈশাখীর৷ বর্তমানে চরমে তাঁদের দলত্যাগের সম্ভাবনা৷ এই পরিস্থিতিতে খেলা জমিয়ে দিয়েছে তৃণমূল৷ সূত্রের খবর, শনিবার পুরনো দলের তরফে ফের একবার যোগাযোগ করা হয়েছে কলকাতার একদা মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে৷ রাগ ভেঙে তাঁকে আবার দলে ফিরতে বলা হয়েছে৷ নিজের আগের সমস্ত দায়িত্ব বুঝে নেওয়ারও প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বেহালা পূর্বের বিধায়ককে৷

[ আরও পড়ুন: আর নোটিস নয়, রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে সরাসরি আইনি পদক্ষেপের পথে সিবিআই ]

জানা গিয়েছে, শনিবার মমতাঘনিষ্ট তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা ফোন করেন শোভন চট্টোপাধ্যায়কে৷ ফোনের ওপার থেকে দিদির একদা প্রিয় ‘কানন’-এর ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টা করেন তিনি৷ শোভন যে আজও দলের কাছে প্রথমদিনের মতোই গুরুত্বপূর্ণ, প্রাক্তন মেয়রকে সেটাই বোঝান ওই শীর্ষ নেতা৷ দলের মধ্যে যা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে, যে কারণে শোভন চট্টোপাধ্যায় দলত্যাগ করেছেন, তা মিটিয়ে ফেলার আরজি জানান তিনি৷ শেষে, দলে ফিরে শোভনকে পুনরায় নিজের আগের দায়িত্ব বুঝে নেওয়ারও প্রস্তাব দেন তিনি৷ যদিও শাসকদলের ওই শীর্ষ নেতার প্রস্তাবে শোভন চট্টোপাধ্যায় রাজি হয়েছেন কিনা বা প্রস্তাব প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন করেছেন কিনা, সেই বিষয়ে কিছুই জানা যায়নি৷

[ আরও পড়ুন: স্কুটির ক্যারিয়ারে অস্ত্র পাচার, তপসিয়া থেকে পুলিশের জালে এক যুবক ]

উল্লেখ্য, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগে, একাধিকবার শাসকদলের তরফে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷ তাঁকে ফোন করে দলের কাজে যুক্ত হওয়ার অনুরোধ করেন বর্তমান মেয়র তথা মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম৷ বিজেপিতে যোগ দেওয়ার দিন কয়েক আগেও গোপনে তাঁর ফ্ল্যাটে যান তৃণমূলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ কিন্তু তাতেও চিঁড়ে ভেজেনি৷ শাসকদলের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ত্যাগ করে দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে নাম লেখান শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্তু শুরুকেই ছন্দ পতন হয়৷ পদ্মের কাঁটায় বিদ্ধ হন কলকাতার একদা মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ও শিক্ষাবীদ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ রাজ্য বিজেপির কিছু নেতার ব্যবহারের ক্ষোভপ্রকাশ করেন তাঁরা৷ প্রথমে দেবশ্রী রায়কে দলে নেওয়া নিয়ে গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ান তাঁরা৷ এরপর জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি মন্তব্যের বিরোধিতা করে পদ্মশিবিরের উপর ক্ষোভ উগরে দেন৷ অভিযোগ করেন শীর্ষ নেতৃত্বের কাছেও৷ মুকুল রায় তাঁদের মানভঞ্জনের চেষ্টা করলেও, কাজের কাজ হয়নি৷ ফলে বর্তমানে রাজ্য রাজনীতিতে শোভন-বৈশাখীর দলত্যাগ নিয়ে জোর জল্পনা চলছে৷ এই পরিস্থিতিতে প্রাক্তন মেয়রকে দলে ফেরাতে পারলে, তা শাসকদলকে পক্ষে ভাল মাইলেজ দেবে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং