১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

কানহাইয়ার সভা ঘিরে অগ্নিগর্ভ যাদবপুর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 22, 2017 1:16 pm|    Updated: October 4, 2019 3:20 pm

Alleged ABVP activists attack Kanhaiya Kumar’s event at Jadavpur

'যদি কারও কালি মাখানোর থাকে, তিনি যেন তাঁকে মঞ্চে উঠে কালি মাখান', খোলা আহ্বান জানান কানহাইয়া।

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গতবার মহাজাতি সদনে এসেই বর্ষীয়ান বামমনস্ক মানুষদের প্রশংসা আদায় করেছিলেন। এবার মেদিনীপুরে যাওয়া মাত্রই রাজ্যের রাজনৈতিক হাওয়া উত্তপ্ত হয়েছিল। পরবর্তী কর্মসূচি ছিল যাদবপুরে। মঙ্গলবার তাঁর সভা ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠল যাদবপুর চত্বর। তা উপেক্ষা করেই জমায়েত সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বক্তৃতা পেশ করলেন ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমার।

ঘরজামাই হওয়াই কাল, শ্বশুরের হাতে খুন যুবক ]

এই প্রজন্মের বামনেতাদের মধ্যে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা তুঙ্গে। আর তাই তাঁর বিরুদ্ধে যত অভিযোগই থাকুক না কেন, কানহাইয়া কুমারের সভা মানেই ভিড় বাঁধা। তারুণ্যের ভিড়। গতবার যখন তিনি এসেছিলেন তখনই তাঁর বক্তৃতা ভাল লেগেছিল বহু মানুষের। বর্ষীয়ান বামমনস্করা বলেছিলেন, ছেলেটির মধ্যে অদ্ভুত সম্মোহিনী ক্ষমতা আছে। যা মুহূর্তে থিতিয়ে পড়া কোনও কিছুকে চাঙ্গা করে তুলতে পারে। এবারের সফরে গোড়া থেকেই হই হট্টগোল। মেদিনীপুরের স্পোর্টস কমপ্লেক্সে সভা চলাকালীন কানহাইয়া কুমারের মুখে কালি মাখানোর চেষ্টা করে এক যুবক। হিন্দু সংহতির সমর্থক ওই যুবককে আটক করে পুলিশ। স্বভাবতই যাদবপুরের সভা ঘিরে গণ্ডগোলের আশঙ্কা ছিলই। যদিও আঁটোসাটো নিরাপত্তাতেই শুরু হয়েছিল সভা। কিন্তু মঞ্চে কানাহাইয়া কুমার আসা মাত্র মঞ্চের পাশ থেকেই কেউ কেউ গণ্ডগোল বাধানোর চেষ্টা করে। অভিযোগ, এবিভিপি-র সমর্থকরা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে সভা ভণ্ডুল করার চেষ্টা করে। তাদের বাধা দিতে যায় এআইএসএফ-এর কর্মীরা। দুই পক্ষের বচসা গড়ায় হাতাহাতিতে। তুমুল বিতণ্ডা শুরু হয়। ঘটনায় দু-একজন বেশ জখম হয়েছেন বলেও জানা যাচ্ছে। যদিও ঘটনার দায় অস্বীকার করা হয়েছে এবিভিপি-র পক্ষ থেকে।

তেরো বছরের মেয়ের দেহ দান করলেন শিবপুরের দম্পতি ]

এদিকে প্রবল গণ্ডগোল সত্ত্বেও বক্তৃতা রাখতে ওঠেন কানহাইয়া। বলেন, “কেউ কেউ চেষ্টা করছে যাতে আমরা ‘মন কি বাত’ বলে উঠতে না পারি। ওটা শুধু প্রধানমন্ত্রীই বলবেন। কিন্তু তাই কি হয়! আমরা নিশ্চিত আমাদের মনের কথা ভাগাভাগি করে নেব।” আর যদি কারও কালি মাখানোর থাকে, তিনি যেন তাঁকে মঞ্চে উঠে কালি মাখান, খোলা আহ্বান জানান কানহাইয়া। তিনি জানান, কেউ তাঁর মুখে কালি মাখাতে পারে। কিন্তু তাঁর বিচারকে কালিমালিপ্ত করতে পারেন না। কেননা তাঁর কাছে সব রংই সমান। রং দেখে তাঁর বিচার পালটায় না বলেই এদিন শহরে এসে জানিয়ে গেলেন তরুণ বামপন্থী ছাত্রনেতা। জিএসটি থেকে ‘আচ্ছে দিন’-এর কড়া সমালোচনা শোনা গেল তাঁর মুখে ।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে