BREAKING NEWS

১৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

বিপর্যয় অব্যাহত বউবাজারে, ফের ভেঙে পড়ল বাড়ির একাংশ

Published by: Bishakha Pal |    Posted: September 11, 2019 10:02 am|    Updated: September 11, 2019 5:23 pm

An Images

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিপর্যয় থামছেই না বউবাজারে। মঙ্গলবার কেএমআরসিএল এলাকায় এসে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পর ফের ভেঙে পড়ল বাড়ির একাংশ। বুধবার সকালে স্যাকরা পাড়া লেনে  ফের ভেঙে পড়ল একটি বাড়ির সামনের অংশ। যদিও এই ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর মেলেনি।

বুধবার সকাল সাড়ে চারটে নাগাদ বউবাজারের ৭/১ স্যাকরা পাড়া লেনের একটি দোতলা বাড়ির একাংশ ভেঙে পড়ে। মঙ্গলবার রাতে কয়েক পশলা বৃষ্টি হয় কলকাতায়। তার পরই ফের বাড়ি ভাঙার ঘটনা ঘটল। উল্লেখ্য, এই বাড়িরই একটি অংশ ভেঙে পড়েছিল কয়েকদিন আগে। যদিও দুর্গা পিতুরী লেন, স্যাকরা পাড়া লেন-সহ গোটা বউবাজারের একাধিক এলাকা এখন কার্যত জনশূন্য। বাসিন্দাদের অন্যত্র সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে বুধবার সকালের ঘটনায় তেমন কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলেই খবর। 

[ আরও পড়ুন: বড়বাজারে বড়সড় হাওলা চক্রের পর্দাফাঁস করল পুলিশ, জালে দুই ]

এক সপ্তাহ আগে, ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সুড়ঙ্গের জন্য টানেল বোরিং মেশিনের কাজ চলাকালীন বউবাজারে ভেঙে পড়ে বাড়ি। আতঙ্ক তৈরি হয় মানুষের মধ্যে। তদন্তে নেমে বোঝা যায়, সুড়ঙ্গে জল জমে মাটির আলগা হয়েই বাড়ি ভেঙে পড়েছে। বিপর্যয়ের দায় নিয়ে মেট্রো কর্তৃপক্ষ নতুন বাড়ি তৈরি এবং আপদকালীন আর্থিক সাহায্যের প্রতিশ্রতি অনুযায়ী তা দেওয়াও হয়। কিন্তু এক সপ্তাহ কেটে গেলেও আতঙ্ক এখনও কাটেনি। ১ সেপ্টেম্বরের পর থেকে প্রায় প্রতিদিনই ক্রমাগত বাড়ি ভেঙে পড়েছে বা কোনও বাড়ি থেকে চাঙড় খসে পড়ছে। যদিও এলাকার বাসিন্দাদের নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। দুর্গা পিতুরী লেন, স্যাকরা পাড়া, গৌর দে লেন জুড়ে আতঙ্ক বিরাজমান।

পরিস্থিতি সামাল দিতে মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে ডেকে মেট্রো কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিস্তর আলোচনা করেন। সেখানেই স্থির হয়, সোমবার থেকে বিপজ্জনক বাড়িগুলি চিহ্নিত করে ভেঙে ফেলা হবে। সেইমতো কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নেয় কেএমআরসিএল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার ৫ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ দল এলাকা পরিদর্শন করেন। তাঁদের সঙ্গে একজন নির্মাণকারী সংস্থার ইঞ্জিনিয়র ছিলেন। বিশেষজ্ঞরা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, প্রথমে বাড়ি মেরামতির কাজ শুরু হবে। তারপর হাত দেওয়া হবে সুড়ঙ্গের কাজে।

[ আরও পড়ুন: বাড়ি মেরামতির পরই সুড়ঙ্গের কাজ, বউবাজারের পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত বিশেষজ্ঞদের ]

An Images
An Images
An Images An Images