২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

স্বাস্থ্যকর্মীদের থেকে সংক্রমণ পরিবারেও, বেলেঘাটা আইডি’র কর্মী আবাসনে করোনা আক্রান্ত ৭

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 28, 2020 2:12 pm|    Updated: May 28, 2020 2:16 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বাস্থ্যকর্মীদের থেকে করোনা সংক্রমণ তাঁদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যেও। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের কর্মী আবাসনে আরও ৭ জনের দেহে মিলল নোভেল করোনার জীবাণু। সোয়াব টেস্টের রিপোর্ট পাওয়ার পর তাঁদের বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালেই ভরতি করানো হয়েছে বলে খবর। এই ঘটনার পর ওই কর্মী আবাসন নিয়ে নতুন করে চিন্তায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের দুই স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হন। তাঁদের কাজ থেকে ছুটি দিয়ে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালেই ভরতি করে নেওয়া হয়। পরিবারকেও কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়। যে আবাসনের ওই দুই কর্মী থাকতেন, সেই দুটি আবাসন সংলগ্ন এলাকাকে Containment Zone হিসেবে ঘোষণা করা হয়। আবাসনে অন্যান্য বাসিন্দাদের প্রবেশ অথবা সেখান থেকে বেরনোর ক্ষেত্রে জারি হয় নতুন করে নিয়ম। আপাতত ওই দুই স্বাস্থ্যকর্মীর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল হলেও, তাঁদের পরিবারের সদস্যরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দুই পরিবারের অন্তত ৭ জনের সোয়াব টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর তাঁদেরও বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভরতি করা হয়েছে। আবাসন দুটি স্যানিটাইজ করা হবে বলে খবর। সেইসঙ্গে অন্যান্য আবাসিকদেরও করোনা পরীক্ষা করা হতে পারে।

[আরও পড়ুন: ২ মাস পর দমদম বিমানবন্দর থেকে উড়ল প্রথম যাত্রীবাহী বিমান, গন্তব্য গুয়াহাটি]

বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালই প্রথম সরকারি হাসপাতাল, যেখানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামো তৈরি করা হয়। সেখানেই প্রথমদিকে COVID-19 আক্রান্তদের চিকিৎসা হত। সংক্রমণ বাড়তে থাকায় পরবর্তী সময়ে আরও বেশ কয়েকটি হাসপাতালে চিকিৎসা পরিকাঠামো গড়ে তোলা হয়। তবে চিকিৎসা করতে গিয়ে এই মারণ জীবাণুর সংক্রমণ স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা ছিল প্রবল। বাস্তবে হলও তাই। বেলেঘাটা আইডি’র দুই স্বাস্থ্যকর্মীর হাত ধরেই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ল তাঁদের পরিবারেও। যা নতুন করে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্য মহলের কাছে।

[আরও পড়ুন: প্লাজমা দান করে নজির হাবড়ার মনামীর, ইতিহাসের পাতায় ঢুকে পড়ল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement