২০ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বুধবার ৩ জুন ২০২০ 

Advertisement

‘তলানিতে অর্থনীতি’, নোটবন্দির তৃতীয় বর্ষপূর্তিতে কেন্দ্রকে আক্রমণ মমতার

Published by: Sayani Sen |    Posted: November 8, 2019 11:34 am|    Updated: November 8, 2019 5:59 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথম থেকেই নোটবন্দি নিয়ে সুর চড়িয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নোটবন্দির তৃতীয় বর্ষপূর্তিতেও ফের কেন্দ্রকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন তিনি। একটা সিদ্ধান্তে দেশের যে ঠিক কতটা ক্ষতি হয়েছে একগুচ্ছ টুইটের মাধ্যমে সেকথাই তুলে ধরেছেন তিনি।

২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল করার কথা ঘোষণা করেন। নোট বাতিলের ফলে বহু কালো টাকা ও অবৈধ লেনদেন ধরা পড়েছে ঠিকই। তবে কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিরোধীদের দাবি,  দেশের বহু মানুষ সমস্যার মুখোমুখিও হন৷ আচমকাই ৫০০ ও ১০০০ টাকা বাতিল হয়ে যাওয়ায় প্রায় থমকে গিয়েছিল সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবন৷ নোটবন্দির পর থেকে তিন বছর কেটে গেলেও দেশবাসীর পক্ষে স্বাভাবিক এই এক বছর সময়ের মধ্যে দেশবাসীর জীবন স্বাভাবিক ছন্দে ফেরা আর সম্ভব হয়নি।  

এই সমস্যাগুলিকেই হাতিয়ার করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আবারও সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটে তিনি লেখেন, “২০১৬ সালে আজকের দিনে নোটবন্দি চালু করা হয়। ঘোষণার কিছুক্ষণের মধ্যেই আমি বলেছিলাম দেশের অর্থনীতি ও সাধারণ মানুষের জীবন এর ফলে বিঘ্নিত হবে। এখন বিশ্বের তাবড় অর্থনীতিবিদ থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ ও বিশেষজ্ঞ সবাই একই কথা বলছেন। সেই দিন অর্থনীতির বিপর্যয় শুরু হয়েছিল আর আজ দেখুন কি পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। ব্যাংক সংকটে, অর্থনীতি মন্দায়। সকলে ভুক্তভোগী। কৃষক থেকে মজদুর, ছাত্র থেকে যুব, ব্যবসায়ী থেকে গৃহবধূ সকলেই।”

[আরও পড়ুন: শক্তি বাড়িয়ে ক্রমশই বাংলার দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা]

তবে এই প্রথমবার নয়। এর আগেও নোটবন্দির বিরোধিতায় সরব হন মুখ্যমন্ত্রী। পথে নেমেও আন্দোলনে শামিল হন তিনি। পালন করেন কালাদিবসও। কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় টুইটারের ডিপি কালোও করে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। নোট বাতিলের পাশাপাশি জিএসটি প্রণয়ন নিয়েও সুর চড়ান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্প্রতি জয়েন্ট এন্ট্রান্সের প্রশ্নপত্রে আঞ্চলিক ভাষা হিসাবে গুজরাটিকে প্রাধান্য দেওয়ার ইস্যুতে চরম ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় আগামী ১১ নভেম্বর পথে নেমে আন্দোলনেরও ডাক দিয়েছেন তিনি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement