৯ মাঘ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সন্দীপ চক্রবর্তী: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের(CAA)বিরোধিতায় সরব বহু মানুষ। আইনের প্রতিবাদে চলছে দিকে দিকে বিক্ষোভ। কখনও স্টেশনে আবার কখনও বাসে আগুন লাগিয়ে আন্দোলনে শামিল বিক্ষোভকারীরা। ক্রমশই বাড়ছে বিক্ষোভের ঝাঁজ। উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে ফের সাধারণ মানুষকে সতর্ক হওয়ার বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্প্রীতি এবং শান্তি বজায় রাখার আরজিও জানান তিনি।

শনিবার বিবৃতি দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানান, “সকল রাজ্যবাসীর কাছে আমি আবার অনুরোধ করছি যে কোনওভাবেই কোনওরকম হিংসাত্মক কাজকর্মে লিপ্ত হবেন না এবং রাজ্যজুড়ে সম্প্রীতি ও শান্তি বজায় রাখুন। মনে রাখবেন থানা, রেলস্টেশন, বিমানবন্দর, পোস্ট অফিস, সরকারি দপ্তর, পরিবহণ ব্যবস্থা জনগণের সম্পত্তি। সরকারি এবং বেসরকারি যে কোনও ধরনের সম্পত্তির কোনওরকম ক্ষতি হলে তা রাজ্য সরকার কোনওমতেই বরদাস্ত করবে না এবং আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।রাজ্য সরকার একদিকে যেমন নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এবং এনআরসি-র বিরুদ্ধে। পাশাপাশি রাজ্য সরকার সমস্ত রকম দাঙ্গা-হাঙ্গামা এবং শান্তি নষ্ট করার যাবতীয় প্রচেষ্টারও ঘোর বিরোধী। আমরা নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এবং এনআরসির বিরুদ্ধে যাবতীয় বিরোধিতা করতে চাই কেবলমাত্র গণতান্ত্রিক এবং শান্তিপূর্ণ উপায়ে। কিছু রাজনৈতিক দল ধর্মীয় গোঁড়ামি এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার উদ্দেশ্যে রাজ্যজুড়ে অশান্তির আবহ ও দাঙ্গা তৈরি করার চেষ্টা করছে।আমি সকলকে অনুরোধ করছি তাদের এই অসাধু উদ্দেশ্যে কর্ণপাত না করতে। সকল রাজ্যবাসীর কাছে আমার সনির্বন্ধ অনুরোধ যে সবাই শান্তি এবং সম্প্রীতি বজায় রাখুন।”

[আরও পড়ুন: CAA বিক্ষোভে জ্বলল লালগোলা-কৃষ্ণপুর, পুড়ল একাধিক ট্রেন]

এর আগে শুক্রবার দিঘা থেকেও শান্তি সম্প্রীতি বজায় রাখার বার্তা দিয়েছিলেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। যে বা যারা সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে তাতেও আন্দোলনকারীরা প্রশমিত হয়নি। বরং ক্রমশই বাড়ছে স্টেশন এবং বাসে অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনা। তাই ফের আরও একবার CAA বিরোধী আন্দোলনকারীদের সতর্ক বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং