২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  শনিবার ১১ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

বাইকের তাণ্ডব রুখতে আরও কড়া হচ্ছে বিধাননগর পুলিশ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 30, 2016 9:59 am|    Updated: October 27, 2018 5:46 pm

An Images

কলহার মুখোপাধ্যায়: রাতের ভিআইপির বুক চিরে হাওয়ার গতিতে ছুটে যাওয়া বাইকবাহিনীকে আটকাতে এবারে ভিআইপি রোডে বাড়ছে গার্ড রেল৷ বাইকের দৌরাত্মে লাগাম টানতে এ ছাড়া আর কোনও উপায় দেখছে না বিধাননগর পুলিশ৷ শুধু রেল গার্ড নয়, মোড়ে মোড়ে চেকিংও বাড়ছে৷ উল্টোডাঙা থেকে বিমানবন্দর হয়ে এই গুরুত্বপূর্ণ সড়কের দু’ধারে গজিয়ে ওঠা পানশালা থেকে বেরিয়ে বাইকবাহিনী যে ভাবে দাপিয়ে বেড়ায় তা নিয়ে আতঙ্কিত মানুষ৷ বাড়ছে দুর্ঘটনাও৷

তবে এখন শুধু ভিআইপি রোড নয়, পুলিশের মাথাব্যথা নিউটাউন-সল্টলেকও৷ সেখানেও পরিস্থিতি ক্রমশ আয়ত্তের বাইরে চলে যাচ্ছে৷ শুধু বাইক নয়, রাতে বেপরোয়া গাড়ি নিয়েও অভিযোগ এখানকার বাসিন্দাদের৷ এই সমস্যা নিয়ে বৈঠকও করেছেন পুলিশ কর্তারা৷ এবার সিদ্ধান্ত কার্যকর করার অপেক্ষা৷ আইন মোতাবেক যতটুকু ক্ষমতা আছে হাতে, তা সম্বল করেই বাইক দৌরাত্ম থামাতে কোমর বেঁধে নামতে চলেছে বিধাননগর কমিশনারেট৷

গত কয়েকদিনে একের পর এক দুর্ঘটনায় একাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে এই অঞ্চলে৷ বাইক আরোহী এক সিভিক পুলিশের মৃত্যু হয়েছে ভিআইপি রোডের ওপর৷ তীব্র গতিতে ছুটে আসা এক বাইকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন এক কনস্টেবল৷ মাত্র কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে এই দুই ঘটনায় টনক নড়ে যায় পুলিশের৷ কমিশনারেটের এক আধিকারিক বলছেন,  মাত্র এক বছরের হিসেব নিলেই দেখা যাবে যে একশোরও বেশি বাইক দুর্ঘটনা ঘটেছে শুধুমাত্র নিউটাউন ও ভিআইপি রোডে৷ তবু বাইকের স্পিড কমেনি৷ আর পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দুর্ঘটনাও৷

অধিকাংশ  ক্ষেত্রে দেখা যায় বাইক চালকদের বয়স ২৫ থেকে ৩০-এর মধ্যে৷ জোরে বাইক চালানো বা রেসিং করা এদের শখ৷ ফাঁকা রাস্তা পেলেই স্পিড বাড়িয়ে দেওয়াটা অভ্যাসে দাঁড়িয়ে গেছে তাদের৷ এদের শায়েস্তা করতে এবার বাঁধা আইনের মধ্যেই কড়া হওয়া শুরু করছে কমিশনারেটের ট্রাফিক বিভাগ৷ রাত হলেই বসানো হবে বাড়তি গার্ড রেল৷ হাই স্পিড দেখলেই দেওয়া হবে কেস৷ প্রয়োজনে ১৮৪ ধারা ব্যবহার করতে পিছপা হবে না পুলিশ৷ হেলমেট না থাকলে কোনও রকম ছাড় দেওয়া হবে না৷ বেপরোয়াভাবে বাইক চালালে সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় এনে বিচার হবে৷ একবারের বেশি দুবার কেউ একই অপরাধ করলে তার লাইসেন্স পাঞ্চ করানোর ব্যবস্থা করা হবে৷ সতর্কতামূলক এই ইতিমধ্যেই ব্যবস্থাগুলি নেওয়া শুরু করে দিয়েছে পুলিশ৷ দিনে দিনে যা আরও কঠিন আকার নেবে বলে দাবি কমিশনারেটের৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement