৫ মাঘ  ১৪২৫  রবিবার ২০ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দিন বদলালেও রথযাত্রা হবে। নির্ধারিত রুটেই বাংলায় বেরোবে রথ। লালবাজারে এদিন প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করে একথা জানালেন বিজেপি-র শীর্ষনেতৃত্ব। প্রশাসনের অনুমতি পাওয়ার দু-তিনদিনের মধ্যে রথযাত্রার দিনক্ষণ ঘোষণা করা হবে।

[ইউনিসেফের বিচারে যামিনী রায় পুরষ্কারের দাবিদার রাজ্যের ৩ স্কুল]

কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশ মতো এদিন লালবাজারে বিজেপির সঙ্গে বৈঠকের আয়োজন করে রাজ্যের প্রশাসনিক কর্তারা। ছিলেন রাজ্য পুলিশের ডিজি, রাজ্যের প্রধান সচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিব। বিজেপি-র পক্ষ থেকে বৈঠক নিয়ে সকাল থেকেই চাপানউতর চলেছে। প্রথমে ঠিক হয় বিজেপি নেতা মুকুল রায়, রাজ্যের সহ সভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার ও প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় বৈঠকে যোগ দেবেন। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের নির্দেশে ঠিক হয়, মুকুলের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দেবেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।  তাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমতি পাওয়া যায় কিনা, তা নিয়ে ধন্দে ছিলেন বিজেপির শীর্ষনেতারা। শেষ পর্যন্ত পাঁচ নেতাই লালবাজারে যান। প্রশাসনের সঙ্গে রথযাত্রা ও বিজেপির সভা নিয়ে বৈঠকে বসেন রাজ্য ডিজি, প্রধান সচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিব।

এদিন লালবাজারে প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকে ইতিবাচক ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে বলেই জানালেন বিজেপি-র শীর্ষ নেতারা। বাংলায় রথযাত্রায় তিনটি জেলাকে বেছে নিয়েছে রাজ্য বিজেপি। কোচবিহার, দক্ষিণ ২৪ পরগণা ও বীরভূম থেকে রথ বেরোনোর কথা ছিল। এছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে ছোট ছোট রথ এসে বড় রথের সঙ্গে মিশবে বলে পরিকল্পনা ছিল। রাজ্যের প্রত্যেক প্রান্তের মানুষের কাছে পৌঁছতেই এই সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। প্রশাসনের অনুমতি পেলে পূর্বনির্ধারিত রুটেই রথ বের করবে বিজেপি। বৈঠক শেষে তেমনই জানালেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

বাড়ির উঠোনে মায়ের দেহ সমাধিস্থ মেয়ের! চাঞ্চল্য সিউড়িতে

বুধবার রাজ্যে এসেছেন মোহন ভগবত। সূত্রের খবর, দুদিন রাজ্যে গোপন কর্মসূচি করছেন তিনি। এবার লোকসভায় বিজেপিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার কথা জানিয়েছেন সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহও। এই রথযাত্রার পরই শিলিগুড়িতে সভা করার কথা ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। কিন্তু এই রথযাত্রা বাতিল হওয়ায় বাংলা সফর স্থগিত হয়ে যায়। তবে তিন রাজ্যের বিধানসভায় খারাপ ফলের পর নতুন উদ্যোগে ঝাঁপাতে চাইছে বিজেপি। নির্বাচনে বাংলাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে এই মাসেই লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে আসতে পারেন নরেন্দ্র মোদি। রাজনৈতিক মহলের মতে, রাজ্যের বিজেপি কর্মীদের চাঙা করতেই এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং