BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

নবান্ন অভিযানে জলকামানে ব্যবহৃত রাসায়নিকের প্রকৃতি জানার দাবি, অমিত শাহকে চিঠি লকেটের

Published by: Sayani Sen |    Posted: October 14, 2020 4:22 pm|    Updated: October 14, 2020 7:34 pm

An Images

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: নবান্ন অভিযান নিয়ে এখনও সরগরম রাজ্য রাজনীতি। এবার মিছিল হঠাতে জলকামানে ব্যবহৃত রং নিয়ে সরব বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। অমিত শাহকে চিঠি লিখেছেন তিনি। বিজেপি সাংসদের দাবি, কোন ধরনের রং ব্যবহার করা হয়েছিল তা রাজ্যের কাছ থেকে রিপোর্ট চান অমিত শাহ (Amit Shah)।

বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় (Locket Chatterjee) বলেন, “নবান্ন অভিযানের দিন যেভাবে জলকামানের সঙ্গে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়েছে তাতে অনেক বিজেপি কর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েছিল। এই রাসায়নিক মিশ্রিত জলে শরীরের ক্ষতি হয় তাঁদের। চামড়ার সমস্যা হয়েছে। ক্যানসার হতে পারে। রাজ্য জানাক জলের সঙ্গে কী মেশানো ছিল। হোলির রং বললে তো হবে না। অমিত শাহকে চিঠি দিয়েছি। রাজ্যের কাছ থেকে উনি যেন বিষয়টি নিয়ে রিপোর্ট চান।” এছাড়া গত ৮ জুন নবান্ন অভিযানের দিকে বিজেপি সন্ত্রাসবাদী বলে তোপ দেগেছিলেন পুরমন্ত্রী তথা কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)। তারই পালটা জবাব দিলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “বিজেপি সর্বভারতীয় দল। কোনও নিষিদ্ধ সংগঠন নয়। তা সত্ত্বেও বিজেপি কর্মীদের উপর এই ধরণের রাসায়নিক প্রয়োগ করা হবে কেন?”

[আরও পড়ুন: মহামারী আবহে বাংলায় দুর্গোৎসব বন্ধ রাখা হোক, হাই কোর্টে দায়ের জনস্বার্থ মামলা]

উল্লেখ্য, গত ৮ অক্টোবর সাত দফা দাবিতে নবান্ন (Nabanna) অভিযানের পরিকল্পনা ছিল বিজেপির। সেই অনুযায়ী হাওড়া এবং কলকাতা মিলিয়ে মোট চারটি মিছিল বেরোয়। অভিযোগ, সেই মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। এমনকী তাঁদের দলীয় কর্মীদের উপর ‘অমানবিক’ অত্যাচার করা হয় বলেও অভিযোগ। ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা, ইটবৃষ্টি পালটা লাঠিচার্জ, বিক্ষোভ সব মিলিয়ে প্রায় রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে সাঁতরাগাছি, হাওড়া ময়দান, হাওড়া ব্রিজ, হেস্টিংস। বিজেপি নেতাকর্মীদের নিয়ন্ত্রণে আনতে জলকামান ব্যবহার করে পুলিশ। ওই জলকামানের জলেই মেশানো ছিল নীল রং। বিজেপির দাবি, তাতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ বেশ কয়েকজন। তবে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দোষীদের চিহ্নিত করার জন্য হোলির রং ব্যবহার করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: পুজোর মুখে বাড়ি ফেরার ধুম, একদিন রেকর্ড যাত্রী দমদম বিমানবন্দরে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement