৩১ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ১৭ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দীপঙ্কর মণ্ডল:  তিন মাস আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায় অনশন ভেঙেছিলেন এসএসসি প্রার্থীরা। এবার মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করলেন অনশনকারী চাকরিপ্রার্থীদের একাংশ। তবে সময় কম থাকায় সেভাবে কথা হয়নি। তাই গন্তব্যের উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে চাকরিপ্রার্থীদের আশার আলো দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী। জানালেন, ২১ জুলাইয়ের পরই তাঁদের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। 

[আরও পড়ুন: মেট্রোয় জোর করে ওঠার চেষ্টা, প্রথমবার জরিমানা ভিনরাজ্যের যাত্রীর]

২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে মেয়ো রোডে প্রায় এক মাস অনশন করেন এসএসসি প্রার্থীরা। বেশ কয়েকজন গুরুতর অসুস্থও হয়ে পড়েন। টানা অনশনে এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলার ভ্রুণ নষ্ট হয়। বহু মহিলা প্রার্থী ইউরিন ইনফেকশনে আক্রান্ত হন। কারও কারও গলব্লাডারে পাথর জমে। সেই লড়াইয়ে খোলা আকাশের নিচে তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, বুদ্ধিজীবী মহলের একটি বড় অংশ। পরে ২৮ মার্চ মুখ্যমন্ত্রী গিয়ে তাঁদের দাবি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেওয়ার পর আন্দোলন প্রত্যাহার করেন তাঁরা। কারণ, তখন নির্বাচনী আচরণবিধি লাগু থাকায় কোনও পদক্ষেপ করা সম্ভব ছিল না সরকারের। তাই মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের আশ্বাস দিয়েছিলেন, নির্বাচনের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ নেওয়া হবে৷ এরপরই তাদের জন্য পাঁচ সদস্যের কমিটি গড়ে সরকার।

আন্দোলনকারীদের তরফে তানিয়া শেঠ জানান, “সরকারি কমিটির সঙ্গে শেষ বৈঠক হয়েছে ২৫ জুন। তারপর থেকে বিকাশ ভবনে কেউ আর আমাদের সঙ্গে দেখা করছেন না। গিয়ে অপমানিত হয়ে ফিরে আসতে হচ্ছে। আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তাঁরা দুর্ব্যবহার করছেন। বাধ্য হয়ে আমরা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে যাই।”

বৃহস্পতিবার বানতলায় মুখ্যমন্ত্রীর সরকারি কর্মসূচি ছিল। সেই অনুষ্ঠানে যাওয়ার আগে এসএসসি প্রার্থীরা তাঁর বাড়িতে হাজির হন। বেরিয়ে যাওয়ার সময় তাঁদের কাছে ডাকেন মমতা। প্রতিনিধিদের তরফে তানিয়া শেঠ এবং হাফিজুল গাজি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে যান। তাঁদের থেকে সংক্ষেপে সব শোনেন মুখ্যমন্ত্রী। গাড়িতে ওঠার আগে তিনি জানিয়ে দেন, একুশে জুলাইয়ের পর বিস্তারিত আলোচনা হবে।

[আরও পড়ুন: শাসানো হয়েছে মাধবী মুখোপাধ্যায়কে, পরোক্ষে তৃণমূলকে তোপ বঙ্গীয় চলচ্চিত্র পরিষদের]

সেই সময়ও মুখ্যমন্ত্রীর কাছে গিয়ে দাঁড়ানোই ছিল উপশম। তাঁকে দেখে, তাঁর কথায় ভরসা পেয়ে প্রায় একমাসের অনশন প্রত্যাহার করেছিলেন এসএসসি চাকরিপ্রার্থীরা। তাঁদের অভিযোগ ছিল, নিয়োগ তালিকায় নাম থাকা সত্ত্বেও নিয়ম মেনে চাকরি হয়নি। আন্দোলনকারীদের দাবি ছিল, শূন্যপদের একটি আপডেটেড তালিকা প্রকাশ করতে হবে। ফলপ্রকাশের তালিকার পাশে প্রত্যেকের প্রাপ্ত নম্বর উল্লেখ করতে হবে। জুনের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে সমাধান করার চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তা হয়নি। ফের পরিস্থিতি জটিল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তাই মুখ্যমন্ত্রী দ্বারস্থ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা। তানিয়ার কথায়, “মুখ্যমন্ত্রীর উপর এখনও ভরসা আছে। দাবি না মিটলে আমাদের অন্য পরিকল্পনা আছে।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং