৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

উপসর্গ নিয়েও কলকাতায় ঘোরাঘুরি! দায়িত্বজ্ঞানহীন করোনা আক্রান্ত দ্বিতীয় যুবকও

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: March 20, 2020 3:01 pm|    Updated: March 20, 2020 3:01 pm

An Images

ছবি প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চূড়ান্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন কলকাতার দ্বিতীয় করোনা আক্রান্তও। বন্ধুরা করোনা(Coronavirus) আক্রান্ত জানা সত্ত্বেও প্রথম থেকে জ্বর-কাশির বিষয় লুকিয়েছেন পরিবারের কাছে। বিমানবন্দরে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের পর বেলেঘাটা আইডিতে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলে, সে বিষয়টিকেও তোয়াক্কা করেননি তিনি। উলটে দাপিয়ে বেড়িয়েছেন শহরের বিভিন্ন জায়গায়। আর এতেই শহরবাসীর জন্য মরণফাঁদ তৈরি হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন অনেকেই।

জানা গিয়েছে, ১৩ মার্চ লন্ডন থেকে শহরে ফেরেন লেক রোডের একটি অভিজাত আবাসনের বাসিন্দা ওই যুবক। ১৩ তারিখ বিমানবন্দরে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের পর তাঁকে বেলেঘাটা আইডিতে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু সে কথা তোয়াক্কা না করেই বাড়ি ফিরে যায় সে। এরই মধ্যে যে ২ বন্ধুর সঙ্গে লন্ডন থেকে দেশে ফেরে ওই যুবক, তাঁদের শরীরে মেলে করোনার জীবানু। তা জানার পরও চিকিৎসকদের পরামর্শ নেওয়ার কথা ভাবেননি লন্ডন ফেরত ওই যুবক। এই পরিস্থিতিতে লেক মল-সহ দক্ষিণ কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় ঘোরেন তিনি। পরে বৃহস্পতিবার তিনি পরিবারের সদস্যদের জানান, তাঁর জ্বর হয়েছে। কাশিও রয়েছে। এরপরই তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে।

[আরও পড়ুন: ‘নিয়মিত যোগচর্চায় ধর্ষণ রোখা সম্ভব’, নির্ভয়া কাণ্ডে ৪ দোষীর ফাঁসির দিনে দাওয়াই রামদেবের]

প্রাথমিক উপসর্গ দেখে তাঁর নমুনা পরীক্ষার জন্য নাইসেডে পাঠানো হয়। শুক্রবার সকালে রিপোর্ট হাতে আসতেই জানা যায় তিনি করোনা আক্রান্ত। এরপরই শুরু হয় চিকিৎসরা। যুবকের মা, বাবা, ঠাকুমা-দাদু-সহ মোট ১১ জনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। কিন্তু শহরের দ্বিতীয় করোনা আক্রান্তের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বিমানবন্দর থেকে নির্দেশ দেওয়ার পর কেন বেলেঘাটা আইডি-তে গেলেন না ওই যুবক? কেনই বা বন্ধুরা আক্রান্ত জানার পরও চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার কথা ভাবলেন না? উলটে ঘুরে বেড়ালেন গোটা শহরে। এই যুবকের মাধ্যমে ই শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করছেন সকলেই।

[আরও পড়ুন: দুঃস্থদের কাছে পৌঁছে দিতে করোনা আতঙ্কের মাঝে বাড়িতেই তৈরি মাস্ক, বিপদে ‘দেবদূত’ বৃদ্ধ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement