BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

দিলীপের মন্তব্যে বিতর্ক, জোটের পাশে থাকার বার্তা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 30, 2016 3:40 pm|    Updated: May 30, 2016 4:07 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: সোমবার বিধানসভায় ফের আক্রমণাত্মক মেজাজে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ তৃণমূল বিরোধিতায় বাম-কংগ্রেস জোটের পাশে থাকার বার্তাও দিয়েছেন তিনি৷ বিধানসভা নির্বাচনে জোট করে মুখ থুবড়ে পড়তে হয়েছে বাম-কংগ্রেসকে৷ বিজেপির ঝুলিতে গিয়েছে তিনটি আসন৷ এদিন বিজেপির রাজ্য সভাপতির জোটের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা নতুন কোনও রাজনৈতিক সমীকরণের সূচনা করে কি না সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল৷ এর আগেও যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় সহ একাধিক ইস্যুতে মারমুখি মেজাজে পাওয়া গিয়েছিল তাঁকে৷ সোমবার বিধায়ক হিসাবে শপথ নেওয়ার পর শাসক দলের উদ্দেশে তিনি বলেন, “কেউ যদি মারে তবে চা-মিষ্টি খাওয়াতে পারব না৷ এতটা উদার নয় দিলীপ ঘোষ৷”

নিজের পুরনো মন্তব্যের জন্য এতটুকু দুঃখিত নন খড়গপুরের বিধায়ক৷ তাঁর কথায়, “হিংসা বন্ধ না হলে আমরা আমাদের পথেই চলব৷ বিভিন্ন ইস্যুতে প্রয়োজনে সিপিএম, কংগ্রেসের সঙ্গে হাত মেলাতেও রাজি আছি৷” মুখ্যমন্ত্রীর শপথ বয়কট করেছিল বাম-কংগ্রেস৷ এদিন তাদের ধন্যবাদ জানান দিলীপ ঘোষ৷ এদিকে সোমবার শপথ নিলেন রাজ্যের ১৮৬ বিধায়ক৷ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, স্বপন দেবনাথ, চন্দ্রনাথ সিনহা, অবনী জোয়ারদার, উজ্জ্বল বিশ্বাসরা তাঁদের শপথ নেওয়ার পর দফতরের দায়িত্ব বুঝে নেন৷ প্রথমদিনের মতোই কয়েকটি দলে ভাগ করে শপথবাক্য পাঠ করালেন প্রোটেম স্পিকার জটু লাহিড়ী৷ অলচিকি ভাষায় শপথ নেন তৃণমূল বিধায়ক সুকুমার হাঁসদা৷ বিধানসভায় সকাল ন’টা থেকে শপথগ্রহণ শুরু হয়৷ মাঝে এক ঘণ্টা বিশ্রাম৷ এই শপথ-অনুষ্ঠান চলবে সন্ধে পর্যন্ত৷ শনিবারও দীর্ঘ শপথগ্রহণ প্রক্রিয়া চলেছে বিধানসভায়৷ আগামিকাল মঙ্গলবার বিধানসভার স্পিকার নির্বাচন৷ আনুষ্ঠানিকভাবে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা হবে৷ তার আগে বিরোধী দল কংগ্রেস এখনও তাদের নেতা বেছে উঠতে পারেনি৷ এদিন বিধানসভা ভবনের নৌশাদ আলি কক্ষে বিধায়কদের শপথ ঘিরে ছিল রীতিমতো উৎসবের মেজাজ৷ জয়ী বিধায়করা একে অপরকে যেমন অভিনন্দন জানিয়েছেন, তেমনই পরিষদীয় কাজকর্ম নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement