৩ কার্তিক  ১৪২৫  রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮  |  সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটালের পক্ষ থেকে সকলকে শুভ বিজয়া

BREAKING NEWS

Pujor Face
DurgaAsuraDhunuchi DanceSindur KhelaClick
মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও পুজো ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩ কার্তিক  ১৪২৫  রবিবার ২১ অক্টোবর ২০১৮ 

BREAKING NEWS

Pujor Face

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দীর্ঘ রোগভোগের পর প্রয়াত লোকসভার প্রাক্তন স্পিকার সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়৷ মৃত্যুকালে তাঁর বসয় হয়েছিল ৮৯ বছর৷ আজ, সোমবার সকাল ৮টা ১৫-য় দক্ষিণ কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি৷ গত দু’মাস ধরেই মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিলেন তিনি৷ চিকিৎসার জন্য তাঁকে ক্রিটিক্যাল কেয়ারে রাখা হয়৷ দীর্ঘ চেষ্টার পরও তাঁকে মৃত্যুর মুখ থেকে আর ফেরাতে পারেননি চিকিৎসকরা৷ সোমনাথবাবুর প্রয়াণে বাংলার রাজনীতিতে নেমেছে শোকের ছায়া৷

গত দু’মাস ধরে ফুসফুস ও কিডনিতে মারাত্মক সংক্রমণ ও সঙ্গে শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন৷ আশঙ্কাজনক অবস্থায় দক্ষিণ কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালের ক্রিটিকাল কেয়ারে ভরতি করানো হয়৷ রাখা হয়েছিল ভেন্টিলেশনে৷ মুহূর্তে মুহূর্তে সংজ্ঞা হারাচ্ছিলেন তিনি৷ সংক্রমণ হওয়ার জেরে রবিবার দুপুর থেকে কিডনি ও ফুসফুসের কাজ মাঝে মধ্যেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল বলে খবর৷ ছিল মাল্টি অর্গ্যান ফেলিওর হওয়ার আশঙ্কা৷ গত ৪৮ ঘণ্টায় লোকসভার প্রাক্তন অধ্যক্ষের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ার জেরে তাঁকে প্রতি মুহূর্তেই নজরদারিতে রাখা হয়৷ হাসপাতালের তরফে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলেও তাঁকে আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়নি৷  

[গলায় কয়েন আটকে প্রাণসংশয়, দুধের শিশুকে ফেরাল চার-চারটি হাসপাতাল]

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, কিডনি ঠিকঠাক কাজ না করায় ডায়ালিসিস শুরু করতে হয়েছিল অনেক আগে থেকেই৷ কিন্তু, তা আর কাজে এল না৷ চলতি সপ্তাহে প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে বেলভিউ হাসপাতালে ভরতি করা হয়৷ অক্সিজেন দিয়ে তাঁর শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা হলেও শুক্রবার রাতে থেকে ভয়ংকর শ্বাসকষ্ট শুরু হয়৷ ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা৷ আশঙ্কাজনক অবস্থায় তড়িঘড়ি ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয় ৯০ ছুঁইছুঁই এই প্রাক্তন সিপিএম সাংসদকে৷ শ্বাসকষ্টের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ফুসফুস ও কিডনির সমস্যা দেখা দিতে শুরু করে৷ শুক্রবার রাত থেকে ঠিকঠাক ভাবে কাজ করা বন্ধ করে দেয় ফুসফুস ও কিডনি৷ শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়, শনিবার রাতে৷ রবিবার নতুন করে হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি৷ কোনওক্রমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন চিকিৎসকরা৷ কিন্তু, সমস্ত চেষ্টায় জল ঢেলে বিদায় নিলেন তিনি৷

জানা গিয়েছে, গত ২৫ জুন স্ট্রোক হয় তাঁর৷ বেলভিউ হাসপাতালে তখনও তাঁকে ভরতি করা হয়৷ পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় গত পয়লা আগস্ট সোমনাথকে ছুটি দেওয়া হয় হাসপাতাল থেকে৷ বাড়িতেও চলছিল তাঁর চিকিৎসা৷ কিন্তু সপ্তাহ ঘুরতে না-ঘুরতেই প্রবীণ এই বাম নেতা এতটাই অসুস্থ হয়ে পড়েন যে ফের তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়৷

[আমার বক্তব্য টিভিতে দেখানো হবে না, অমিতের মন্তব্যের পালটা তৃণমূলের]

১৯২৯ সালের ২৫ জুলাই জন্ম নেওয়া বামপন্থী রাজনীতিবিদ (২০০৪-২০০৯) সোমনাথ চট্টোপাধ্যায় প্রথম বাঙালি অধ্যক্ষ হিসাবে লোকসভা পরিচালনা করেছিলেন৷ দলের উর্ধ্বে উঠে অধ্যক্ষের পদের গরিমা উজ্জ্বল করে ছিলেন তিনি৷ নিজের পদকে সম্মান জানিয়ে শাসক-বিরোধী সব দলকে লোসকাভায় নিজেদের দাবি প্রতিষ্ঠার সুযোগ দিয়ে সংসদদের মন কেড়ে নিয়েছিলেন বাংলার এই রাজনৈতিক কর্মী৷ এক বাক্যে শান্ত রেখেছিলেন লোকসভাকে৷ সাংসদদের আচার-আচরণেও কড়া বিধিনিষেধ এনেছিলেন৷ সংসদে নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে গিয়ে ২০০৮ সালের ২৩ জুলাই সিপিএম দল থেকে বহিষ্কার করা হয় টানা দশবারের (১৯৮৯ থেকে ২০০৯) এই সাংসদকে৷ ১৯৬৮ সালে বামপন্থী আন্দোলনের সঙ্গেও যুক্ত হন সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়৷ তাঁর প্রয়াণে একটি রাজনৈতিক অধ্যায়ের অবসান ঘটল৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং