২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

যাত্রী সুবিধায় নয়া ভাবনা, এবার পুজোয় মিলতে পারে বাড়তি মেট্রো পরিষেবা

Published by: Sayani Sen |    Posted: August 12, 2019 4:12 pm|    Updated: August 12, 2019 4:12 pm

An Images

নবেন্দু হাজরা: যাত্রীদের সুবিধায় নয়া ভাবনাচিন্তা মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের৷ এবার পুজোয় অনেক বেশি সংখ্যক মেট্রো চলবে৷ তার ফলে বাড়তি পরিষেবা পাবেন যাত্রীরা৷ ভিড়ে যাতে কোনও দুর্ঘটনা না হয়, সে বিষয়ে অতিরিক্ত নজরদারিও চালানো হবে৷

[আরও পড়ুন: ফের এসএসকেএম-এ তাণ্ডব খিদিরপুরের বাসিন্দাদের, চিকিৎসককে বেধড়ক মার]

পুজোর আগে শনি ও রবিবার কেনাকাটা করতে যান অনেকে৷ তাই খুব কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছনোর জন্য মেট্রোর উপরেই ভরসা করেন তাঁরা৷ সূত্রের খবর, সেকথা মাথায় রেখে পুজোর আগের শনি এবং রবিবার অতিরিক্ত মেট্রো চলতে পারে৷ এবার পুজোয় বাড়তি পরিষেবা দেওয়ার ভাবনাচিন্তা মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের। সূত্রের খবর, চতুর্থী, পঞ্চমী ও ষষ্ঠীতে সকাল আটটা থেকে রাত এগারোটা দশ পর্যন্ত চলাচল করবে মেট্রো। প্রতি বছরই সপ্তমী, অষ্টমী, নবমীতে দুপুর ১টা ৪০ থেকে মেট্রো চলাচল শুরু হয়৷ তবে চলতি বছর সময় পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে৷ সূত্রের খবর, এবার সপ্তমী থেকে নবমী পর্যন্ত দুপুর ১টা থেকে মিলতে পারে মেট্রো পরিষেবা৷ সারারাত ধরে ঠাকুর দেখে বাড়ি ফিরতে যাতে সমস্যা না হয় সে কারণে অন্যান্য বছরের মতো এবারও ভোর ৪টে পর্যন্ত চলবে মেট্রো।

উৎসবমুখর বাঙালির দশমীর পরেই যে পুজো শেষ হয়ে যায় তা নয়৷ একাদশী থেকে হয় অফিস নইলে আত্মীয়দের বাড়িতে আসাযাওয়া লেগেই থাকে৷ সূত্রের খবর, সেকথা মাথায় রেখে পরিষেবা বাড়ানোর ভাবনাচিন্তা রয়েছে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের৷ একাদশী থেকে চতুর্দশী পর্যন্ত ২৩৬টি মেট্রো চালানো হবে৷ লক্ষ্মীপুজোয় তুলনামূলক কম মেট্রো চলবে৷ গত বছর ১৭৪টি মেট্রো চলেছে৷ সূত্রের খবর, চলতি বছর সংখ্যা কমে দাঁড়াতে পারে ১৩৬টি৷

[আরও পড়ুন: বেপরোয়া বাইক চালককে আটক, বদলা নিতে থানায় ঢুকে পুলিশকে মারধর অনুগামীদের]

পুজোয় ভিড় সামাল দিতে প্রতিবছরই বাড়তি পরিষেবার ব্যবস্থা করে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ। চালানো হয় অতিরিক্ত রেকও। যদিও এ বছর রেক নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। বেশ কিছু রেক তুলেও নেওয়া হয়েছে৷ যার ফলে খানিকটা সমস্যায় পড়তে হয়েছে কর্তৃপক্ষকে। পরপর একাধিক দুর্ঘটনার কারণে বেশ কিছুদিন ধরেই সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে মেট্রোর যাত্রী দুর্ভোগের কথা। নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েও উঠেছে একাধিক প্রশ্ন। এবার ঘটনার পুনরাবৃত্তি এড়াতেই একাধিক বাড়তি পরিষেবা নিয়ে ইতিমধ্যেই আলোচনা শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement