২৮ কার্তিক  ১৪২৬  শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৮ কার্তিক  ১৪২৬  শুক্রবার ১৫ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

স্টাফ রিপোর্টার: উপচার্যদের নিয়ে নবান্নের বৈঠকে একগুচ্ছ বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছাত্রছাত্রীদের সুবিধার পাশাপাশি শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য পরামর্শও দিয়েছিলেন তিনি। মঙ্গলবার এই বৈঠকের আগেই নেতাজি ইনডোরে প্রকাশ্য সভায় উপচার্যদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট বলেছিলেন, “কে কী ডেকে বলল, তা নিয়ে চিন্তা করার কারণ নেই। আমাদের সরকার নির্বাচিত। কোনও সমস্যা হলে আমাকে বলবেন। স্বাধীনভাবে কাজ করুন।” মুখ্যমন্ত্রীর এই বার্তার ২৪ ঘণ্টা পূর্ণ হওয়ার আগেই রাজ্যের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় প্রকাশ্যেই উষ্মা প্রকাশ করে টুইট করলেন। এবং মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশেই ফের ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য তাঁর।

রাজ্যপাল টুইটে লিখেছেন, “রাজ্যপাল এবং চ্যান্সেলর হিসাবে যে পদক্ষেপ করা হয়েছে, তা সংবিধান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম মেনেই। ওঁনার হয়তো ‘বিটুইন দ্য লাইনের’ অর্থ বোঝা উচিত।”

রাজভবন বনাম নবান্নের সংঘাত চলছে বেশ কয়েকদিন ধরেই। ইদানীং বেশ কয়েকটি ঘটনায় প্রকাশ্যেই রাজ্য সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যপাল। এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর বার্তার উপর সরাসরি উষ্মা প্রকাশ করেছেন রাজ্যপাল। নেতাজি ইনডোরে উপস্থিত ১৮ জন উপচার্যের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, কোনও ভয় পাবেন না। স্বাধীনভাবে কাজ করুন।

[আরও পড়ুন: জয়েন্টের প্রশ্নপত্রে বাংলা ভাষাকে উপেক্ষা, আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মমতার]

রাজনৈতিক মহল মনে করছে, মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে ভাল চোখে দেখেনি রাজভবন। তাই মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্যপাল টুইট করে জবাব দিলেন। সেইসঙ্গে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যেই বার্তা ছুড়ে দিলেন রাজ্যপাল। এদিন রাজ্যপাল টুইট করে জানিয়েছেন, আচার্য হিসাবে তাঁর সব পদক্ষেপ সংবিধান মেনেই। একটি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবরও রাজ্যপাল টুইটে তুলে ধরেছেন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং